সাভারে সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কে হাঁটু পানি, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : সাভার পৌরসভাসহ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে সামান্য বৃষ্টিতেই রাস্তাঘাট তলিয়ে হাটু পানি জমে যায়। বৃষ্টির পর ঘর থেকে বের হওয়াই দায়। জলাবদ্ধতার ফলে ব্যবসায়ী, শ্রমজীবী, চাকুরীজীবী, শিক্ষার্থীদের জন্য বৃষ্টি এখন মারাত্মক সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে। এ জলাবদ্ধতা গোটা পৌরসভাসহ সাভারবাসীর জন্য একটি যন্ত্রণাদায়ক বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। কিন্তু পৌর কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের যেন এ ক্ষেত্রে করার কিছুই নেই। আর জনগণও চলার পথে তাদের উপর অকথ্য ভাষায় ক্ষোভ ঝেড়ে কিছুটা হলেও স্বস্তি পাচ্ছে। মানুষের বক্তব্য, শুধু ক্ষোভ ঝেড়েই তাদের এ জলাদ্ধতা যন্ত্রণার দায় মেটবে না। খেসারত দিতে হতে হতে পারে আগামী সংসদ নির্বাচনে।
সামান্য বৃষ্টি হলেই সাভারের রাস্তাঘাট, হাট-বাজার, পাড়া-মহল্লার অলিগলি পানি জমে তলিয়ে যায়। কোন কোন এলাকার বাসিন্দারা হাঁটু পানিতে বন্দি হয়ে পড়েন। এক ঘণ্টার বর্ষণে কোনো কোনো মহল্লার বাড়িঘর ও দোকানপাটে পানি ঢুকে পড়ে। সাভার পৌরসভাসহ বিভিন্ন এলাকায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় নিচু বা উঁচু এলাকার সর্বত্রই জলাবদ্ধতার অভিন্ন চিত্র বিরাজমান।
ইতোমধ্যে কিছু এলাকায় ড্রেনেজ ব্যবস্থার সংস্কার করা হলেও যেসব এলাকায় এখনো কাজ চলছে সেসব এলাকার মানুষকে পোহাতে হচ্ছে ভোগান্তি। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে সাভারবাসীর দুর্ভোগের সীমা থাকে না। এক সময় শহরের পয়ঃপানি খাল-নালা দিয়ে সাভারের দক্ষিণদিক দিয়ে প্রবাহিত বংশী নদীতে গিয়ে পড়তো। কিন্তু নদী-নালা খাল-বিল দখল করে অপরিকল্পিতভাবে ঘরবাড়ি, দোকানপাট, মিল-কারখানা গড়ে তোলার ফলে পয়ঃনিষ্কাশনের মুখ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে এখন আর পানি ও ময়লা আবর্জনা নিষ্কাশন হয় না। তাই বর্ষা মৌসুম আসলেই সাভার পৌরবাসীর জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে।
জলাবদ্ধতার কারণে রাস্তাঘাটের প্রভূত ক্ষতি সাধিত হয় এবং নর্দমার পঁচা পানি ও ময়লা আবর্জনা পরিবেশকে দূষিত করে তোলে। পৌরবাসীর অভিযোগ পৌর কর্তৃপক্ষ নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না রেখেই ড্রেন তৈরি করেছে। ফলে সামান্য বৃষ্টি হলেই ময়লা আবর্জনা রাস্তায় উঠে সয়লাব হয়ে যায়। জমে থাকা পানিতে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে গর্তের সৃষ্টি করে।
সাভার পৌরসভার স্মরণিকা আবাসিক এলাকা, ডগড়মোড়া, চাপাইন রোড, সিআরপি রোড, ব্যাংক কলোনি, রেডিও কলোনি, আড়াপাড়া, বক্তারপুর, মধ্যপাড়া, বাড্ডাভাটপাড়া, ইমান্দিপুর, সোবহানবাগ, রাজাশন, শাহীবাগ, গেন্ডা, কাতলাপুরসহ বিভিন্ন মহল্লায় জলাবদ্ধতার সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। একটু বৃষ্টি হলেই আবাসিক এলাকায় পানি জমে যায়। সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন রাস্তাঘাট, মার্কেটের পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। শ্রমজীবী, চাকুরীজীবী, ব্যবসায়ীসহ স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা বৃষ্টির পানিতে ভিজে যাতায়াত করে। একই চিত্র সাভার ডিইপিজেড, ডে-াবর, পল্লীবিদ্যুৎ এবং পলাশবাড়ীসহ আশপাশের এলাকার। কোনো কোনো মহল্লায় জলাবদ্ধতা সমস্যা এমন প্রকট আকার ধারণ করেছে যে, লোকজন বাড়িতে তালা দিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।
এ ব্যাপারে সাভার পৌর সভার মেয়র হাজী আবদুল গনি’র সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সাভার পৌর সভার বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা উন্নয়নের কাজ চলছে। এ জন্য  নির্মাণাধীন সড়কে পানি জমছে। কাজ শেষ হলে এ জাতীয় সমস্যা আর থাকবে না।