ধামরাইয়ে অবৈধ ইটভাটা প্রায় দেড়শ, কার্যক্রম বন্ধের নোটিশ মাত্র ১৯টির

ধামরাই প্রতিনিধি : ধামরাইয়ে অধিকাংশ ইটভাটার বৈধ কাগজপত্র না থাকলেও মাত্র কয়েকটি ইটভাটার সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য নোটিশ প্রদান করেছেন উপজেলা প্রশাসন। নোটিশ প্রদানের অধিকাংশ ইটভাটা ৫-৭ বছর আগে নির্মাণ করা হয়েছে। নোটিশ পেয়ে যারা দেখা করেছেন তারা নির্বিঘেœ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। নোটিশের পর সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সাথে দেখা করলেই ইটভাটা বন্ধের আশঙ্কা দূর হয়ে যায়। ইটভাটা নির্মাণে স্থানীয়রা বাধা দিলে মালিকের পক্ষ থেকে চাঁদাবাজি মামলার ভয় দেখানো হয়। জনপ্রতিনিধিদের আপত্তি ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কার্যকরী পদক্ষেপ না থাকায় নতুন ইটভাটা নির্মাণের হিড়িক পড়েছে ধামরাইয়ে। চলতি বছরে ৩৮টি ইটভাটা নির্মাণ করা হয়েছে। বর্তমানেও ফসলি জমিতে ১৫-২০টি ইটভাটা নির্মাণ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাটিপাড়া ও ডেমরানে ৪টি, পাঁচলক্ষ্মিতে ২টি, বাস্তা ও সূত্রাপুরে ৪টি, বালিথা ও বারপাইকায় ৫টি, জালসায় ১টি, বাসনায় ১টি নতুন ইটভাটার নির্মাণ কাজ চলছে।

অবৈধ ইটভাটার মধ্যে বালিয়া ইউনিয়নের আর.বি.সি,কে.বি.এস,এ.আর.বি, কুশুরা ইউনিয়নে এম.আই.সি, হাসান ব্রিকস,এ.এম.এ ব্র্রিকস, সানোড়া ইউনিয়নের লামিয়া ব্রিকস, সূয়াপুর ইউনিয়নের এম.এন.বি, গোল্ড ব্রিকস, আমিন ব্রিকস, সূতিপাড়া ইউনিয়নের এশিয়া ব্রিকস, সোমভাগ ইউনিয়নের ঈগল ব্রিকস, সালাম ব্রিকস, মামা ব্রিকস, ক্যাপিটা অটো ব্রিকস, ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের লাকী ব্রিকসসহ ১৯টি ইটভাটার মালিককে সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ রাখতে নোটিশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। বন্ধ না করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে বিভিন্ন নোটিশে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম বলেন, পর্যায়ক্রমে অবৈধ ইটভাটা বন্ধে নোটিশ প্রদান করা হবে। না মানলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, কৃষি জমিতে ধামরাইয়ে প্রায় ২শ ইটভাটা রয়েছে। এরমধ্যে অধিকাংশরই পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও জেলা প্রশাসকের লাইসেন্স নেই।