সিংগাইর পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের ডিজিএম অবরুদ্ধ

সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি : কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার অভিযোগে মিটার রিডার-কাম ম্যাসেঞ্জারদের অবরুদ্ধের শিকার হয়েছেন সিংগাইর পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) মোঃ মাহবুবুর রহমান। সোমবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত তার নিজ অফিসে অবরুদ্ধ করে রাখেন তার অধিনস্থ প্রতিবাদকারী মিটার রিডার ও ম্যাসেঞ্জাররা। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

মিটার রিডারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ডিজিএম মাহবুবুর রহমান এ অফিসে যোগদানের পর থেকে কারণে-অকারণে কারণ দর্শানো নেটিশ প্রদানসহ চাকরিচ্যুতির হুমকি দিয়ে চলছেন। এ কর্ম এলাকায় ৩৭ জন মিটার রিডারের মধ্যে ১১ জনকে দেয়া হয়েছে শোকজ নোটিশ।

আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, তাদের দিয়ে দপ্তরাশেদের বাইরে অতিরিক্ত মিটার রিডিং, বকেয়া বিল, সাব-স্টেশনে ডিউটি, মিটার পরিবর্তন, নাইট অপারেশন ও সেচ বিল আদায়সহ অতিরিক্ত কাজ করানো হয়ে থাকে। এর ব্যাতিক্রম ঘটলে শোকজ নোটিশের বাইরেও অশোভন আচরন, হুমকি-ধামকিসহ চাকরিচ্যুতির ভয় দেখানো হয়। আন্দোলনকারীদের মধ্যে মোঃ রাশেদুজ্জামান, আনিসুর রহমান, আরিফ হোসেন ও মোশারফ হোসেন অভিযোগ করে বলেন, এ ঘটনার সুষ্ট সমাধান ছাড়া আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকবো। সেই সাথে মিটার রিডাররা মানিকগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জোনারেল ম্যানেজারের (জিএম) হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আন্দোলনকারীরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের সামনে অবস্থান করছেন। এদিকে, সিংগাইর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ৮ অঞ্চলের পরিচালক ফয়েজুল ইসলাম খানের মধ্যস্থতায় সমঝোতার চেষ্টা চলছে বলে জানা গেছে।

অবরুদ্ধ পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, দাফতরিক কাজের জন্য বিভিন্ন সময় তাদের চিঠি ইস্যু করতে হয়। মিটার রিডারদের সাথে কথা না বলে কিছু বলতে পারছি না। আশা করি, তাদের সাথে বসে আলোচনা করলে সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।