ভোট এলেই ধর্মের রাজনীতি করে বিএনপি : হাছান মাহমুদ

স্টাফ রিপোর্টার : ভোটের সময় এলেই বিএনপি-জামায়াত ধর্ম ব্যবসা শুরু করে। ধর্মের দোহাই দিয়ে মানুষের কাছে ভোট চায়। অথচ ফিলিস্তিনির মুসলমানদের পাখির মত গুলি করে হত্যা করা হলেও সে বিষয়ে বিএনপির মুখে কোনো প্রতিবাদের ভাষা বের হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ফিলিস্তিনে নির্বিচারে মানুষ হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের আয়োজনে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির মুখে শুধু খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে ফুলঝুড়ি ঝড়ে; তার মুুক্তির জন্য সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন করা হচ্ছে। খালেদা জিয়া কোনো রাজনৈতিক বন্দী নন, তিনি দুর্নীতির অভিযোগে বন্দী রয়েছেন। আইন অনুযায়ী তার উপযুক্ত বিচার ও শাস্তি হবে। তারা (বিএনপি) ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছেন। অথচ ফিলিস্তিনির নারী-পুরুষ ও শিশুদের নির্মমভাবে হত্যা করা হলেও সে বিষয়ে তাদের মুুখে একটি প্রতিবাদের ভাষাও নেই। আওয়ামী লীগের এই প্রচার সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে তা বানচাল করার চেষ্টা করেছে। এবারও সে পথেই হাঁটছে। খালেদা জিয়া আর তারেককে ছাড়া তারা নির্বাচনে আসবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। নির্বাচন বানচাল করার সুযোগ তাদের দেয়া হবে না।’ বিএনপি দলকে খালেদা জিয়া আর তারেক নির্ভর না করার পরামর্শ দিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আপনারা (বিএনপি) দুই জন ব্যক্তির উপর নির্ভর করে থাকবেন না। আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিন। নির্বাচন থেকে পিছিয়ে থাকলে বিএনপিকে আর ধরে রাখা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। মানববন্ধনে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু বলেন, ‘ফিলিস্তিনে গণত্যার প্রতিবাদ জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। যেখানেই মানবতা বিবর্জিত ঘটনা ঘটেছে, সেখানেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবাদ করেছেন। মানবতার কারণে মিয়ানমারের প্রায় সাড়ে ১১ লাখ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন। শেখ হাসিনাকে ‘মানবতার প্রতীক’ হিসেবে বিশ্ববাসী স্বীকৃতি দিয়েছে। মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য খন্দকার গোলাম মওলা, বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মেজবা উদ্দিন সফী প্রমূখ।