মধ্যপ্রাচ্য নিয়ে সৌদি যুবরাজ বিন সালমানের ‘অভিপ্রায়’!

ফুলকি ডেস্ক: তলেতলে সম্পর্কটা চলে আসছিল। আছে ফিসফাসও। কিন্তু সৌদি আরব ও ইসরায়েলের মধ্যকার আড়ালের ‘সম্পর্ক’ ক্রমেই আলোয় আসছে। এ ক্ষেত্রে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ভূমিকা চোখে পড়ার মতো।

সংস্কারের আওয়াজ তুলে নিজ দেশে রীতিমতো হইচই ফেলে দিয়েছেন মোহাম্মদ বিন সালমান। আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও তিনি আলোচিত।

সৌদি আরবের সিংহাসনে আছেন বাদশা সালমান। তবে দণ্ডমুণ্ডের কর্তা তাঁর ৩২ বছর বয়সী পুত্র। যুবরাজ নিজ দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আঞ্চলিক রাজনীতিরও হর্তাকর্তা হতে মরিয়া। তাই তিনি আঞ্চলিক রাজনীতির নানা বিষয়ে বেপরোয়াভাবে হস্তক্ষেপ করে চলছেন। এলক্ষ্যে দেয়া সম্প্রতি তাঁর কিছু বক্তব্য মুসলিম বিশ্বকে হতবাক করেছে। তাঁর কথার জের ধরে প্রশ্ন উঠেছে, যুবরাজের অভিপ্রায় কি?

এদিকে মার্কিন সাময়িকী দ্য আটলান্টিককে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যুবরাজ বলেছেন, ‘তিনি বিশ্বাস করেন, পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্রে বাস করার অধিকার আছে। ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলিদের তাদের নিজস্ব ভূমির ওপর অধিকার আছে।’ যা বিতর্ককে আরো উষ্কে দিয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের ‘ক্যানসার’ ইসরায়েলের প্রতি কোনো আরব নেতার এমন প্রকাশ্য স্বীকৃতিকে তাই স্বাভাবিক মনে করছেন না অনেকেই।

এর আগে গত ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলের রাজধানীর স্বীকৃতি দেয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই হঠকারী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মোহাম্মদ বিন সালমানের সৌদি আরবের ভূমিকা ছিল হতাশাজনক। নামমাত্র বিবৃতি দিয়ে ‘দায়িত্ব’ সেরেছে রিয়াদ। এ সময় সৌদি যুবরাজ’র ‘বড় গলা’ থেকে কোনো ঝাঁজালো হুংকার বের হতে দেখা যায়নি।

চরম মুসলিমবিদ্বেষী ট্রাম্পকে ‘মুসলমানদের সত্যিকারের বন্ধু’ মনে করেন মোহাম্মদ বিন সালমান। আর ট্রাম্পের ইহুদি জামাতা জ্যারেড কুশনার হলেন সৌদি যুবরাজের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তো সেই বন্ধু কুশনার ও তাঁর স্ত্রী ইভাঙ্কা গত রোববার ইসরায়েলে ছুটে গেছেন। এমনকি  গত সোমবার জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস সরিয়ে নেওয়ার অনুষ্ঠানে তাঁরা অংশ নিয়েছেন। এদিন অর্ধশতাধিক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। আহত প্রায় তিন হাজার। চারদিকে নিন্দার ঝড় বইছে। অথচ এ ব্যাপারে নিরব সৌদি।

অবশ্য সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহের পরিপ্রেক্ষিতে ফিলিস্তিনিদের অধিকারের ব্যাপারে মোহাম্মদ বিন সালমানের নীরবতা অস্বাভাবিক কিছু নয়। এই তো সেদিনই যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি ইহুদিগোষ্ঠীর নেতাদের সঙ্গে আলাপে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষকে উদ্দেশ করে তিনি বলেছেন, ‘আলোচনার টেবিলে আসুন, শান্তি প্রস্তাব গ্রহণ করুন, তা না হলে অভিযোগ জানানো বন্ধ করে চুপ থাকুন।’

এদিকে কূটনৈতিক সম্পর্ক না থাকলেও সৌদি আরব ও ইসরায়েলের মধ্যে যোগাযোগের খবর গণমাধ্যমে আসছে। ইরান চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণায় সৌদি আরব ও ইসরায়েল বেজায় খুশি। এসব ঘটনা ও মোহাম্মদ বিন সালমানের নানান বক্তব্যে মনে হয়, ‘শত্রুর শত্রু আমার বন্ধু’ নীতি নিয়েছেন সৌদি যুবরাজ। শত্রুতা ও অশান্তির মধ্যপ্রাচ্যে ‘রক্ত গরম’ যুবরাজের উচ্চাভিলাষ অর্জন দুরূহই হবে বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক মহল।