র‌্যাবকে মাদকের তথ্য দেওয়ায় সোর্সকে অপহরণ

সাতক্ষীরা সীমান্ত এলাকার মাদক চোরাকারবারীদের বিষয়ে র‌্যাবকে তথ্য দেওয়ায়  সফিকুল ইসলাম (৫০) নামে এক সোর্সকে অপহরণ করে মাদক ব্যবসায়ীরা। এমনকি সফিকুলের হাতে অস্ত্র দিয়ে পুলিশে ধরিয়েও দেয় তারা। অবশেষে এই চক্রটিকে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার (১৫ মে) দুপুরে কাওরান বাজারে র‌্যাবের  মিডিয়া সেন্টারে বাহিনীর ১০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি মো. কাইয়ুমুজ্জামান খান এই তথ্য জানান। মাদক চোরাচালান চক্রের গ্রেফতার আট সদস্য হলোÍ মিলু মিয়া (২৬), আব্দুল খালেক (৩২), ফাহিম আহমেদ (২৮), হাবিবুর রহমান (৩২), সফিউর রহমান ওরফে লিটু (৩৪), আতিকুর রহমান (৩৩), মোখলেস মোল্লা (৩৫) ও মামুন (৩৮)। তাদের কাছ থেকে ছয়টি চোরাই গাড়ি উদ্ধার করেছে র‌্যাব। র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক কাইয়ুমুজ্জামান খান  বলেন, ‘র‌্যাবের সোর্স সফিকুল গত ১৫ এপ্রিল ঢাকায় আসার পথে কাঁঠালবাড়ি ফেরি ঘাট থেকে অপহৃত হন। মাদক চোরাকারবারীরা তাকে অপহরণ করে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানিতে নিয়ে যায়। তাকে উদ্ধারে র‌্যাবের অভিযান টের পেয়ে সফিকুলকে খুলনা নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। এরপর নিজেদের মাদক ও অস্ত্র সফিকুলের হাতে দিয়ে রূপসা থানা পুলিশের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করানো হয়। পুলিশকে বিষয়টি জানানোর পর  সফিকুলকে উদ্ধারসহ ওই চক্রের এক সদস্যকে আটক করে তারা।’ চক্রের সদস্যরা ঢাকায় আসছে এমন খবর পেয়ে সোমবার (১৪ মে) রাতে শনির আখড়া থেকে দিলু মিয়া ও আব্দুল খালেককে একটি চোরাই গাড়িসহ আটক করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ঢাকা, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার থেকে আরও ছয় সদস্যকে পাঁচটি চোরাই গাড়িসহ আটক করা হয়। উদ্ধার করা মোট ছয়টি গাড়ির মধ্যে চারটি প্রাইভেটকার ও দুইটি মাইক্রোবাস রয়েছে।

আটক ব্যক্তিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক জানান, তারা বিভিন্ন জায়গা থেকে চুরি করে গাড়িগুলো মাদক চোরাচালানের কাজে ব্যবহার করতো। তাদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় মাদক, অপহরণ, গাড়ি চুরি, নারী ও শিশু নির্যাতনসহ বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।