মাদকের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানের ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার : দেশব্যাপী মাদকের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানের ঘোষণা দিয়েছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ। সেইসাথে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মাদক ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন তিনি।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি।

এসময় তিনি বলেন, যারা ড্রাগ গ্রহণ করেন তারা সরে আসবেন, খুচরা বিক্রেতারা বিক্রি ছেড়ে দেবেন। আশা করব, ডিলার ও চোরাকারবারিরাও চোরাচালান বন্ধ করে দেবেন। যাদের কাছে অবিক্রিত ড্রাগ রয়েছে তারা আমাদের ক্যাম্পের আশপাশে সেসব ফেলে যাবেন, তাহলে আপনাদের জন্য ভালো হবে।

মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর সাঁড়াশি অভিযান চালানোর আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৪ মে র‌্যাব বিশেষ অভিযান শুরু করে। গত ৯ দিনে র‌্যাবের বিশেষ ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১ হাজার ৪১৫ জন মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীকে সাজা দেওয়া হয়েছে। ২০ লাখ টাকার বেশি আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে এবং ১৫ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া ৩৮১ জনের বিরুদ্ধে নিয়মিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, আমাদের এ বিশেষ অভিযান হবে মূলত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে। অনস্পট অপারেশনের মাধ্যমে মাদক বিক্রেতা ও গ্রহিতাদের সাজা দেওয়া হবে। প্রয়োজন অনুযায়ী নিয়মিত আইনেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মাদকের বিরুদ্ধে সমাজের সকল স্তরের মানুষের সম্মিলিত দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন ম্যাজিকের মতো নিয়ন্ত্রণে আনার কথা বলছি না, তবে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এটা নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে আশা করি।

এটি আর দশটা অপরাধের মতো নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইনজীবীদের প্রতি আহ্বান থাকবে, মাদক ব্যবসায়ীরা যেন আইনের ফাঁকফোকরের সুবিধা ব্যবহার করতে না পারে। সেইসাথে মাদক নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর ও দ্রুত হালনাগাদ করে প্রণয়ন করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে মাদক ব্যবসায়ীদের সমন্বিত তালিকা প্রস্তুত হচ্ছে, সেটা নিয়েও কাজ করার কথা জানান র‌্যাবেব ডিজি।

র‌্যাব প্রতিষ্ঠার পর গত ১৪ বছরে ৬৮ হাজার ৪৯৮ জন মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ১ হাজার ৭০০ কোটি টাকা মূল্যের মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।