সিংগাইর কলেজের ভিপি ইয়াবাসহ আটক, পরিবারের দাবি দলীয় কোন্দল 

সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি : সিংগাইর বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ও উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ ফারুক হোসেন মিরুকে ইয়াবাসহ আটক করেছেন থানা পুলিশ। শনিবার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। আটককৃত ভিপি মিরু পৌর এলাকার আজিমপুর মহল্লার আব্দুল কাদের কসাইয়ের পুত্র। এদিকে মিরু সমর্থিত ছাত্রলীগ নেতা কর্মী ও তার পরিবার দাবি করছেন, ছাত্রলীগের দু‘টি পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে দলীয় কোন্দলের জের ধরে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মামলার এজাহারসূত্রে প্রকাশ, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিংগাইর থানার এসআই সালাউদ্দিন রাসেল, সোহেল রানা ও জাকারিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সদর ইউনিয়নের চর আজিমপুর এলাকার রাস্তা থেকে গত শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে ৫পিস ইয়াবাসহ মিরুকে আটক করেন। মিরুর বাবা আব্দুল কাদের অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলে ইয়াবাতো দূরের কথা ধুমপান পর্যন্ত করে না। ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে দলীয় কোন্দলের জেরে এমপির কাছ থেকে দূরে রাখতে এ মিথ্যা মামলায় তাকে ফাঁসানো হয়েছে। শনিবার সকাল ১০ টার দিকে মিরুর আটকের খবর শুনে তার সমর্থিত ছাত্রলীগের কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিলের চেষ্ঠা করলে পুলিশ তা ছত্রভঙ্গ করে দেন।

এদিকে, উপজেলা ছাত্রলীগ দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার কলেজ শাখা ও পৌর ছাত্রলীগের পৃথক দু‘টি কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়। উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক শাহীনুর রহমান শাহীন ও যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল মামুন স্বাক্ষরিত কলেজ শাখার কমিটিতে আসাদুর রহমানকে সভাপতি ও মোল্লা মোঃ দুলালকে সাধারণ সম্পাদক এবং পৌর কমিটিতে রাজু আহম্মেদ কে সভাপতি ও বেনজির হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা  করা হয়। অপরদিকে যুগ্ম আহবায়ক ফারুক হোসেন মিরু, জাফর তালুকদার ও জাহাঙ্গীর আলম ফাহিম স্বাক্ষরিত পাল্টা কলেজ শাখার কমিটিতে সাইদুর রহমানকে সভাপতি, মোল্লা মোঃ দুলালকে সাধারণ সম্পাদক এবং পৌর কমিটিতে রাজু আহম্মেদ সভাপতি ও সাইদুল ইসলাম কে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করায় দলীয় কোন্দল সৃষ্টি হয়। ছাত্রলীগের দু‘গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এর আগে ছাত্রলীগের দলীয় কোন্দলের জেরে ভিপি মিরুর হাতে মারপিটের শিকার হন আব্দুল্লাহ আল মামুন ও ছাত্রলীগ কর্মী হিমেল। এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভিপি মিরুকে সাজানো ইয়াবায় মামলায় ফাঁসানো হয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মিরু সমর্থিত ছাত্রলীগ কর্মী জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী আব্দুল মাজেদ খাঁন বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানিনা এবং কোন মন্তব্য করতে চাই না। উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক শাহীনুর রহমান শাহীনকে তার মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।