বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে জ্ঞানচর্চা, গবেষণা ও নতুন জ্ঞান অনুসন্ধান করতে হবে। সৃষ্টি করতে হতে নতুন জ্ঞান ও বিজ্ঞান। সেই জ্ঞানের আলোকে জাতির মৌলিক ও বিশেষ সমস্যাগুলোর সমাধান করতে হবে।  বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত স্টেট ইউনিভার্সিটির পঞ্চম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তবে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।   এতে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান ও বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সাঈদ সালাম।  শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের পার্থক্য করি না। তারা সকলেই আমাদের সন্তান এবং জাতির ভবিষ্যৎ। তাদের সকলের জন্যই আমরা মানসম্মত শিক্ষা এবং সকল সুযোগ নিশ্চিত করতে চাই।  তিনি বলেন, এখনও কিছু বিশ্ববিদ্যালয় তাদের নূন্যতম শর্ত পূরণ করতে পারেনি। এভাবে তারা বেশি দিন চলতে পারবেন না। যে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সফল হতে পারেনি, সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ ও নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে, যারা মূনাফার লক্ষ্য নিয়ে চলতে চায়, নিজস্ব ক্যাম্পাসে এখনও যারা যেতে পারেনি তাদের বেশি দিন এভাবে চলতে দেয়া হবে না। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।  সমাবর্তন বক্তা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, ‘মানব সভ্যতার সকল কিছুই শিক্ষার বিষয়। আমাদের সকল কিছুর মধ্য থেকে শিক্ষা অর্জন করতে হবে। সঠিক শিক্ষা অর্জন না করতে পারলে সুন্দরী মেয়েদের দেখে আফসোস করে যেতে হবে। জীবনে সুন্দরী মেয়ে জুটবে না।’  তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে এক ধরণের উত্তেজনা, অসম প্রতিযোগিতার কারণে বিশ্বজুড়ে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধ্বস নেমেছে। তার প্রভাব আমাদের দেশেও পড়েছে। আমি মনে করি সকল খাতে বাজেট কমিয়ে শিক্ষা খাতে ৯০ শতাংশ বাজেট বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন। একটি দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় উন্নতি হলেই দেশ উন্নত হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।  স্টেট ইউনিভার্সিটির সমাবর্তন অনুষ্ঠানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ২ হাজার ২৬৩ জনকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছে। এই সমাবর্তনে ফার্মেসি বিভাগের শারমীন আক্তার ও জেসমিন জুথী গোমেজ পেয়েছেন চ্যান্সেলর পদক, ভাইস-চ্যান্সেলর পদক পেয়েছে ২১ জন ও বিভিন্ন বিভাগের ডিন’স অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন ৪৪ জন শিক্ষার্থী।