গাজীপুর সিটি নির্বাচন নিয়ে ইসির আপিল

বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থীর পর এবার গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ওপর হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল আবেদন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।  বুধবার দুপুর ২টার দিকে আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করা হয়েছে বলে  জানান ইসির পক্ষের আইনজীবী মো. ওবায়দুর রহমান (মোস্তফা)।   ওই নির্বাচন স্থগিত নিয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থীর করা আবেদনের ওপর বুধবার আপিল বিভাগে শুনানি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এদিন সকালে ইসির পক্ষে আইনজীবী মো. ওবায়দুর রহমান (মোস্তফা) আদালতে বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের পক্ষে আমরা হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আবেদন করবো। এ দু’টি আবেদনের সঙ্গে আমাদের আবেদনটি একসঙ্গে শুনানি করলে ভালো হয়।’  তখন আদালত বলেন, ‘বাকিরা করে ফেলেছে, আপনারা এতো দেরি করলেন কেন?’ জবাবে আইনজীবী বলেন, ‘গতকাল (মঙ্গলবার, ৮ মে) নির্বাচন কমিশন থেকে আদেশ পাওয়ার পর আজ আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।’  এরপর আদালত ‘নট টুডে’ (আজকে নয়) আদেশ দেন। এ সময় বিএনপির মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকারের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন দাঁড়িয়ে আগের দুটি আবেদনের শুনানি করতে বলেন। তখন আদালত বলেন, ‘নির্বাচন ১৫ তারিখে (১৫ মে)। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) কী হয় দেখেন।’  সকালের ওই শুনানির পর দুপুরে ইসির পক্ষ থেকে ওই আপিল আবেদন করা হয়।  ১৫ মে অনুষ্ঠেয় গাজীপুর সিটি নির্বাচন স্থগিত করে গত ৬ মে রুলসহ একটি আদেশ দেন হাইকোর্ট। সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার শিমুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজের একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই আদেশ দেয়া হয়।  এদিকে, বুধবার সকালে গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলা প্রশাসন ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজও (বুধবার) আদালত নির্বাচন করার নির্দেশ দিত তাহলে আগামী ১৫ মে ভোটগ্রহণ সম্ভব ছিল। কারণ ভোট গ্রহণের আগে প্রায় সাড়ে আট হাজার ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ এবং প্রায় ১২ হাজার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা প্রয়োজন। কিন্তু স্বল্প সময়ে এতো জনবল মোতায়েন করা সম্ভব নয়।’  ‘তবে আদালত যদি আগামীকাল (বৃহস্পতিবার, ১৫ মে) ভোটগ্রহণের আদেশ দেন তবে আদালতের নির্দেশ মেনে ওই সময়ে ভোটগ্রহণ আমাদের করতেই হবে।’  গাজীপুর সিটি করপোরেশনে সাভারের শিমুলিয়া ইউনিয়নের ছয়টি মৌজাকে অন্তর্ভুক্ত করার বৈধতা নিয়ে রিটটি করা হয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে আদালত নির্বাচন স্থগিত করার পাশাপাশি রুলে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে সাভারের শিমুলিয়া ইউনিয়নের ছয়টি মৌজাকে অন্তর্ভুক্ত করা কেন বেআইনি হবে না- তা চার সপ্তাহের মধ্যে জানতে চান।  পরে ৭ মে এ স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীতপ্রার্থী মো. হাসান উদ্দিন সরকার। তার মতো একই পথে হাঁটেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমও।  দু’জনের আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (৮ মে) চেম্বার জজ বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন। পরে আপিল বিভাগ আজ তা পিছিয়ে বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন।