খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবীকে আসতে বাধা দেওয়া হচ্ছে: রিজভী

সরকার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে বাংলাদেশে আসতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।  বুধবার (৯ মে) দুপুরে বিএনপির নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। রিজভী বলেন, ‘দেশনেত্রীর ডিফেন্স টিমে অংশগ্রহণ করতে  ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইল কয়েক সপ্তাহ আগে লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে ভিসার জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু  হাইকমিশন হ্যাঁ বা না কিছুই বলেনি। তাকে বরং ডেকে নিয়ে কিছু উদ্ভট প্রশ্ন করা হয়েছে। এটাতে স্পষ্ট যে, সরকার বেআইনিভাবে আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে বাংলাদেশে ঢুকতে বাঁধা দিচ্ছে।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘অথচ ১/১১ এর সময়ে আজকের প্রধানমন্ত্রী যখন জেলে ছিলেন, তখন তিনি কানাডার  আইনজীবী প্রফেসর প্যায়াম একাদাম ও ব্রিটেনের আইনজীবী চেরি ব্লেয়ারকে নিয়োগ দিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছিলেন এবং তারা সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রেখেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী প্রতিহিংসার বশবর্তী হওয়ায় দেশনেত্রীর (খালেদা জিয়া) বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে এবং তাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। এই সরকার গণতন্ত্রের মূলে আঘাত করেছে। তারা কোনও কিছুই বাদ রাখেনি।’ লর্ড কার্লাইলকে বাংলাদেশের ভিসা না দিয়ে লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশন নিষ্ঠুর আচরণ করেছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘আসলে আওয়ামী লীগ বিরোধী নেতাকর্মীদের কষ্ট দিয়ে আনন্দ পায়। বিশেষ করে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে কষ্ট দিয়ে। বিগত ৯ বছর ধরে তা প্রমাণিত হয়েছে। দেশে অব্যাহত গুম, খুন এবং রক্তপাতের জন্য তারাই দায়ী।’ নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘সরকার কিছু মোসাহেবী নিয়োগ দিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সরকারের অনুগত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা চান এবং যা বলেন,  তারা তা-ই পালন করে।’ গাজীপুরে সিটি নির্বাচন স্থগিত করা সংবিধানের লঙ্ঘন দাবি করে রিজভী বলেন, ‘জানি না এখন খুলনার সিটি নির্বাচন নিয়ে তারা কোনও দূরভিসন্ধি করছে কিনা। পুলিশ সেখানে বিএনপির সমর্থিত নেতাকর্মীদের বাড়িতে হানা দিয়েছে। এখন সেখানে আরেকটি ম্যাজিক দেখাবে কিনা, জনগণ তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে। আমি নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনকে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু করার দাবি জানাচ্ছি।’