১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকার এডিপি, পরিবহন-বিদ্যুতে প্রাধান্য

আসছে নতুন বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি)। এবার এডিপির আকার হবে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেয়া হবে পরিবহন ও বিদ্যুৎ খাতে। আগামী বৃহস্পতিবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠকে নতুন এডিপির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হতে পারে বলে পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সম্প্রতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে খসড়া এডিপি অনুমোদন করা হয়েছে। প্রস্তাবিত এডিপির মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল (জিওবি) হতে ১ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা, আর বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৬০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এই বরাদ্দ চলতি অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির চেয়ে প্রায় ১৭ শতাংশ বেশি। চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের মূল এডিপির আকার ছিল ১ লাখ ৫৩ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা। সংশোধিত এডিপিতে তা কমিয়ে আনা হয়।

পরিবহন বিদ্যুতে সবোর্চ্চ বরাদ্দ : খাত ভিত্তিক সর্বোচ্চ বরাদ্দ পাচ্ছে পরিবহন খাত। দেয়া হচ্ছে ৪৫ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। বিদ্যুৎ খাতে দেয়া হচ্ছে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বরাদ্দ। প্রস্তাব করা হচ্ছে ২২ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা বরাদ্দের। তৃতীয় সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ন খাতে। এর পরিমাণ ১৭ হাজার ৮৯০ কোটি টাকা। এরপর রয়েছে পল্লী উন্নয়ন ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগ। এজন্য দেয়া হচ্ছে ১৬ হাজার ৬৯০ কোটি টাকা।

এছাড়া শিক্ষা ও ধর্ম খাতের জন্য ১৬ হাজার ৬২০ কোটি টাকা, বিজ্ঞান ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের জন্য ১৪ হাজার ২১১ কোটি টাকা এবং স্বাস্থ্য পুষ্টি, জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ খাতের জন্য ১১ হাজার ৯০৫ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।

মন্ত্রণালয় ভিত্তিক বরাদ্দ : মন্ত্রণালয় ভিত্তিক হিসাবে স্থানীয় সরকার বিভাগের জন্য সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। যার জন্য ২৩ হাজার ৪৩৮ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। এরপর রয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগে ২২ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা। তৃতীয় সর্বোচ্চ ২০ হাজার ৮১৭ কোটি টাকা বরাদ্দ পাচ্ছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। এরপর বরাদ্দের শীর্ষ মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর মধ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের জন্য ১১ হাজার ৭২০ কোটি টাকা, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের জন্য ১১ হাজার ১৫৫ কোটি টাকা, সেতু বিভাগের জন্য ৯ হাজার ১১২ কোটি টাকা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্য ৮ হাজার ৩১২ কোটি টাকা, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিভাগের জন্য ৬ হাজার ৬ কোটি টাকা এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জন্য ৫ হাজার ৬০৬ কোটি টাকা।

দ্বিগুন হচ্ছে পিপিপি প্রকল্প : আগামী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের এডিপিতে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপে (পিপিপি) সর্বোচ্চ ৭৮টি প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে পিপিপি কর্তৃপক্ষের প্রস্তাবিত ৪৭টি এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রস্তাবিত ৩১টি প্রকল্প রয়েছে।