রোজায় বিকেল ৫-১১টা বন্ধ রাখতে হবে সিএনজি স্টেশন

আসন্ন রমজান মাসে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিতের জন্য বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো বন্ধ রাখতে হবে। বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহ করতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।  বৃহস্পতিবার রাজধানীতে বিদ্যুৎ ভবনে চলতি গ্রীষ্ম মৌসুম ও আসন্ন রমজান মাসে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ, বিতরণকারী সংস্থা, পেট্রোবাংলা, এফবিসিসিআই ও দোকান মালিক সমিতির প্রতিনিধিদের নিয়ে এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ উপস্থিত ছিলেন।   দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে লোডশেডিংয়ের অভিযোগ থাকলেও আসন্ন রমজান মাসে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে।  সভায় নসরুল হামিদ বলেন, এখন বিদ্যুতের পর্যাপ্ত উৎপাদন রয়েছে। এ মাসে আরও এক হাজার মেগাওয়াট যুক্ত হবে।  ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আশা করছি নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবেন। আইন মতে যেভাবে দোকান চালু রাখা দরকার সেভাবে করবেন। আর আলোকসজ্জা যতটুকু কম ব্যবহার করা যায়, সেদিকে খেয়াল রাখবেন। আমাদের অন্তত বড় করে কোনো ‘না’ নাই এবার। এ বছর ইলেকশনের বছর, আশা করছি ব্যবসা-বাণিজ্য ভালো করবেন।  রোজায় দোকানপাট, বিপণিবিতান খোলা রাখার বিষয়ে বিদ্যমান বিধিবিধান অনুসরণ, পিক আওয়ারে রি-রেলিং মিল, ওয়েল্ডিং মেশিন, ওভেন, ইস্ত্রির দোকানসহ বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী সরঞ্জাম বন্ধ রাখা, সুপার মার্কেট, পেট্রোল পাম্প, সিএনজি স্টেশনে অতিরিক্ত বাতি ব্যবহার বন্ধ রাখতে বলা হয় সভায়।  এ ছাড়াও সভায় ইফতার ও সেহরির সময় শপিংমল, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের এসির ব্যবহার সীমিত রাখা এবং ইফতার, তারাবি ও সেহেরির সময় লোডশেডিং না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।  সভায় বিদ্যুৎ সচিব আহমদ কায়কাউস, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মানসুর মো. ফয়জুল্লাহ, ডেস্কো, ডিপিডিসির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।