চার মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২১২৩ জন

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চার মাসে ১ হাজার ৮৭১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২ হাজার ১২৩ জন নিহত এবং ৫ হাজার ৫৫৮ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের জাতীয়, আঞ্চলিক ও অনলাইন সংবাদপত্রসমূহে প্রকাশিত সড়ক দুর্ঘটনার সংবাদ নিয়মিত মনিটরিং করে এই প্রতিবেদন তৈরি করে সংগঠনটি। সড়ক দুর্ঘটনা পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনটি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চলতি বছরে ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ৪ মাসে ১ হাজার ৮৭১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৯১৭ জন নিহত ও ৫ হাজার ৫৫৮ জন আহত হয়েছেন। দেশের ছয়টি বিভাগীয় হাসপাতালের তথ্য অনুসারে, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৪ মাসে মারা গেছেন ২০৬ জন। বিদায়ী বছরের একই সময়ে ছোট-বড় ১ হাজার ৭৬৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৯৭৯ জন নিহত এবং ৪ হাজার ৭২৭ জন আহত হয়েছিলেন। ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে দুর্ঘটনার পরিমাণ ১ দশমিক ০৬ শতাংশ, নিহতের সংখ্যা ১ দশমিক ৪৪ শতাংশ এবং আহতের সংখ্যা ৮ দশমিক ৩১ শতাংশ বেড়েছে।

জানুয়ারি মাসে ৪৯৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৩৫৩ জন আহত এবং ৫১৪ জন নিহত হয়। এ মাসে ১৪০টি বাস, ২০৪টি ট্রাক-লরি ও কাভার্ডভ্যান, ৯টি হিউম্যান হলার, ৪১টি কার ও মাইক্রোবাস, ৫২টি অটোরিক্সা, ৯৮টি মোটরসাইকেল, ৩২টি ব্যাটারি চালিত রিকশা ও ইজিবাইক, ৫৩টি নছিমন-করিমন-ট্রাক্টর সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব দুর্ঘটনার ১৭৭টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ৮০টি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে, ৮টি ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে ৬ জন, গাড়িচাপায় ২০৫ জন পথচারী নিহত হয়েছেন।

ফেব্রুয়ারি মাসে ৪৩৯টি সড়ক দুর্ঘটনা হয়। এতে ১ হাজার ৫২১ জন আহত এবং ৪৫৯ জন নিহত হন। এই মাসে ১১৩টি বাস, ১৮৯টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৯টি হিউম্যান হলার, ৬৩টি অটোরিকশা, ৩২টি কার ও মাইক্রোবাস, ৯৩টি মোটরসাইকেল, ২৩টি ব্যাটারি চালিত রিকশা, ৩৫টি নছিমন-করিমন সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব দুর্ঘটনার ১৫৪টি মুখোমুখি সংঘর্ষ ও ৮৭টি খাদে পড়ে, ৬টি ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া ১৭০টি গাড়িচাপার ঘটনায় পথচারী নিহত হয়।

মার্চ মাসে ৪৯১টি সড়ক দুর্ঘটনায়, ১ হাজার ৫০৬ জন আহত এবং ৪৮৩ জন নিহত হয়েছেন। এ মাসে ১৩২টি বাস, ২৩৬টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৭টি হিউম্যান হলার, ৬১টি অটোরিকশা ২৭টি কার ও মাইক্রোবাস, ৯০টি মোটরসাইকেল ১৪টি ব্যাটারি চালিত রিকশা, ২৬টি নছিমন-করিমন দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব দুর্ঘটনার ১৫৬টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ৮৭টি খাদে পড়ে ও ৩টি ট্রেন-যানবাহনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া ২২২টি গাড়িচাপার ঘটনায় পথচারী ও যাত্রী নিহত হয়।

এছাড়া এপ্রিল মাসে ৪৪২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১ হাজার ১৭৮ জন আহত এবং ৪৬১ জন নিহত হন। এই মাসে ১১৪টি বাস, ১৮৪টি ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান, ৬টি হিউম্যান হলার, ৬১টি অটোরিকশা, ২৭টি কার ও মাইক্রোবাস, ৮২টি মোটরসাইকেল, ১৪টি ব্যাটারি চালিত রিকশা, ৩৬টি নছিমন-করিমন-ট্রাক্টর সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এসব ঘটনার ১১৮টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ৮৯টি খাদে পড়ে, ১টি ট্রেন-যানবাহন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া ২১১টি গাড়িচাপার ঘটনায় পথচারী ও যাত্রী নিহত হন।

সড়কে দুর্ঘটনা রোধে সংগঠনটি বেশ কয়েকটি সুপারিশ করেছে। এগুলো হলো- সড়ক দুর্ঘটনাকে জাতীয় সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে জরুরি ভিক্তিতে এসব দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতি কমাতে উদ্যোগ গ্রহণ, মালিক-শ্রমিক-যাত্রী-সরকার মিলে সম্মিলিতভাবে এই সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ গ্রহণ, ফিটনেসবিহীন মেয়াদোত্তীর্ণ যানবাহন উচ্ছেদ করে মানসম্মত যানবাহনের ব্যবস্থা করা, চালকদের আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, চালকদের হাতে দৈনিক চুক্তিভিক্তিক বাস, ট্রাক, হিউম্যান হলারসহ অন্যান্য যানবাহন ইজারা দেওয়া বন্ধ করা, দেশের সকল বেহাল সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করা, ট্রাফিক আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করা, বিআরটিএকে শক্তিশালী করা, পরিবহন খাতকে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত করা, ফুটপাত নির্মাণ, সংস্কার, দখলমুক্ত করে হাঁটার পরিবেশ নিশ্চিত করা।