বাসচাপায় পা হারানো গৃহকর্মী রোজীনাকেও বাঁচানো গেল না

 রাজধানীর বনানীতে বিআরটিসির দ্বিতল বাসের চাপায় পা হারানো গৃহকর্মী রোজিনা আক্তার রোজীকে (১৮) বাঁচানো গেল না। টানা নয়দিন জীবনমৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।  রবিবার সকাল সোয়া ৭টার দিকে ঢামেক হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোজী মারা যান বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রোজিনার বাবা রসুল মিয়া।  রোজিনার বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ধোবাউড়া উপজেলার কালিকাপুর গ্রামে। সাত ভাইবোনের মধ্যে রোজিনা দ্বিতীয়।   গত ২০ এপ্রিল রাতে রাজধানীর বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় উত্তরাগামী বিআরটিসির একটি দ্বিতল বাসের চাপায় গৃহকর্মী রোজী গুরুতর আহত হন। তার ডান পা থেতলে যায়। পরে তাকে অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের (পঙ্গু হাসপাতাল) নেওয়া হলে সেখানে তার ডান পা কেটে ফেলতে হয়।  অবস্থার অবনতি হলে গত ২৫ এপ্রিল রোজিনাকে ঢামেক হাসপাতলে বার্ন ইউনিটের হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) ভর্তি করা হয়। পরে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।  এর কয়েকদিন আগেই রাজধানীর ফার্মগেটে দুই বাসের রেষারেষিতে হাত হারান তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেন। পরে তিনি মারা যান। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই শনিবার রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি বাসের চালক এক প্রাইভেটকার চালকের পায়ের ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে দেন। এসব ঘটনা যেন কোনোমতেই থামছে না।