আশুলিয়ায় চিহ্নিতদের হামলায় মাইক্রো ভাংচুর, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ আহত-৫

আশুলিয়ায় উচ্চ আদালতের স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা বহালকৃত জমিতে জোরপূর্বক মাটি কাটায় বাঁধা দেয়া চিহ্নিতরা জমির মালিক আমাদের রূপগঞ্জ নামে সাপ্তাহিক পত্রিকার এক্সিকিউটিভ এডিটর আনিসুর রহমান, আশুলিয়া থানা উপ পরিদর্শক মোর্শেদ আলী সহ ৫ জন কে পিটিয়ে আহত করেছে। ঘটনায় এডিটর আনিসুর রহমানের একটি মাইক্রো(ঢাকা মেট্রো চ-১৫-৫২০১) ভাংচুর করেছে।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় আশুলিয়ার বাইশমাইল এলাকার গণ স্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজ সংলগ্ন ঘোড়াপীর মাজার এর বিপরীত পাশে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনায় আহতরা হলো- জমির প্রকৃত মালিক সাপ্তাহিক আমাদের রূপগঞ্জ পত্রিকার এক্সিকিউটিভ এডিটর রোটারী ক্লাব অব আড়ং এর সাবেক প্রেসিডেন্ট আনিসুর রহমান, আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক মোর্শেদ আলী মোলøা, মাইক্রো চালক রফিকুল ইসলাম(২৮) রাজমিস্ত্রি রেজাউল করিম ও সুমন সহ ৫ জনকে পিটিয়ে আহত করে।
এ ব্যাপারে এডিটর আনিসুর রহমান বলেন, ১৯৯৫ সালে গণস্বাস্থ সংলগ্ন পাথালিয়া মৌজার আরএস ৫২৪ নং দাগে ৪.২৪ একর জমি তিনি আনিসুর রহমান, মোহাম্মদ আলী ও তাজুল ইসলাম ক্রয় করেন এবং কয়েকটি ঘর নির্মাণ করে ভোগ দখলে থাকা অবস্থায় বিএস রেকর্ডভুক্ত করেন। ওই জমিতে স্থানীয় কতিপয় তারা বিভিন্ন সময় বাউন্ডারীর অভ্যন্তরে ঢুকে মাটি কেটে বিক্রি করে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। ঘটনায় একটি মামলা হয় এবং উচ্চ আদালত স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।  ওই জমিতে গেলে স্থানীয় দেলোয়ার হোসেন, সাবেক পাথালিয়ার ইউপি’র হবি মেম্বার, বর্তমান ধামসোনা ইউপি’র সদস্য শফি, দোকান্দার রহিম ও মাছ ব্যবসায়ী আনোয়ার, আমিনুর ও আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে ২০/২৫ জন অতর্কিত বাউন্ডারীকৃত জমিতে জোরপূর্বক লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। এসময় আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে হামলাকারিদের নিভৃত করার চেষ্টা করলে হামলাকারিরা পুলিশের উপ পরিদর্শক মোর্শেদ আলী মোলøা কে হকিস্টিক দিয়ে আঘাত করলে তার হাতের একটি আঙ্গুল ভেঙ্গে যায়। এসময় হামলাকারিরা তাকেসহ তার গাড়ি চালক রফিকুল ইসলাম(২৮), রাজমিস্ত্রি রেজাউল করিম ও সুমন কেও পিটিয়ে আহত করে। ঘটনায় হামলাকারিরা ঘটনাস্থল থেকে একটি জেনারেটর, ডেকোরেটরের মালামাল, কাটার মেশিনসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র যার আনুমানিক মূল্য প্রায় দেড় লাখ টাকার মালামাল হাতিয়ে নিয়ে যায়। এছাড়া তার ব্যবহৃত একটি মাইক্রো ব্যাপক ভাংচুর চালিয়ে লÿাধিক টাকার ÿতিসাধন করে।
ঘটনায় মামলা দায়েরের করতে তিনি ও আহতরা উপস্থিত হয়েছেন। এসময় হামলায় ভাংচুর হওয়া মাইক্রোবাসটিও থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এসময় হামলকারিদের নিভৃত করতে গেলে তার হাতে আঘাত লাগে এবং হাতের আঙ্গুল ভেঙ্গে যায় বলে তিনি সত্যতা স্বীকার করেন। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ঘটনায় কোন পÿই থানায় অভিযোগ দেয়নি।