ডিজির কথায় প্রমাণ হয়েছে তারেকের পাসপোর্ট নিয়ে কুৎসায় লিপ্ত সরকার: রিজভী

 বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের (ডিজি) কথায় প্রমাণ হয়েছে তারেক রহমানের পাসপোর্টের বিষয়ে কুৎসা রটনা করেছে সরকার।  বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে নয়াপল্টনে পার্টি অফিসে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।  এর আগে পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, মেয়াদ শেষ হওয়ায় তারেক রহমান ২০১৪ সালে লন্ডনে বাংলাদেশি পাসপোর্ট জমা দিয়েছেন, এখনো নতুন পাসপোর্ট নেননি।   লন্ডনে দেওয়া পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলমের বক্তব্যের সমালোচনা করে ২৩ এপ্রিল বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেন, তারেক রহমান যদি পাসপোর্ট জমা দিয়ে থাকেন তাহলে সেটা দেখিয়ে প্রমাণ করুন। নইলে মিথ্যা ও অবান্তর কথা বলার জন্য আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লন্ডন সফরে প্রবাসী বাংলাদেশি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, তারেক রহমান লন্ডন হাইকমিশনে পাসপোর্ট জমা দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করেছেন। তিনি দেশের একটি রাজনৈতিক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হন কিভাবে?  পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে চ্যালেঞ্জ ছোড়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ ভিত্তিহীন, কাল্পনিক ও অনর্গল মিথ্যা বলার যে একটি সেন্টার অব এক্সিলেন্স; সেটি আবারও প্রমাণ করলেন সেই সেন্টারের সদস্য পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।  তিনি বলেন, জিয়া পরিবার নয় বরং প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের সদস্যরাই বিদেশে বিয়ে করেছেন। তারেক রহমানের পাসপোর্ট লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে জমা দেওয়ার প্রশ্নই আসে না।  ‘আওয়ামী লীগ নেতাদের ছেলে-মেয়েরাই বিদেশিদের বিয়ে করে বিদেশের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন, বিদেশে বিভিন্ন পদে অধিষ্ঠিত থাকেন। কেউ আবার গর্বের সঙ্গে নিজেকে ব্রিটিশ বলতেও ভালোবাসেন।’