স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপির সেনা মোতায়েনের দাবি অযৌক্তিক: কাদের

 স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপির সেনা মোতায়েনের দাবিকে অযৌক্তিক বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি।

আসন্ন খুলনা ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনে বিএনপির দাবি প্রসঙ্গে কাদের বলেন, নির্বাচন কমিশন তো বলেছে স্থানীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের দরকার নেই। আর তারা (বিএনপি) যখন ক্ষমতায় ছিল তখন তো এমন সেনা মোতায়েন চায়নি।

এ সময় কলেজ ছাত্র রাজীব হোসেনের মৃত্যুর জন্য চালকদের অসচেতনতা ও রেষারেষিকে দায়ী করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দুই বাসের রেষারেষিতে কলেজ ছাত্র রাজীব হোসেনের হাত বিচ্ছিন্ন হওয়া এবং পরে তার মৃত্যুর জন্য সড়ক ব্যবস্থাপনা দায়ী নয়। তার মতে, পরিবহন অব্যবস্থাপনার জন্য দুর্ঘটনাটি হয়েছে। চালকদের অসচেতনতা ও রেষারেষির কারণেই এটি হয়েছে।

একটি দৈনিকে রাজীবের দুর্ঘটনার জন্য সড়ক ব্যবস্থাপনাকে দায়ী করা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এটা তো সড়ক ব্যবস্থাপনার কারণে হয়নি। খারাপ রাস্তা বা সড়ক অব্যবস্থাপনার কারণে নয়, এটা হয়েছে পরিবহন অব্যবস্থানার কারণে। হয়েছে চালকদের অসচেতনতা ও রেষারেষির কারণে। সুতরাং চালকদের আরও সচেতন হতে হবে।

গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে পান্থকুঞ্জ পার্কের সামনে বিআরটিসির একটি বাসের সঙ্গে স্বজন পরিবহনের একটি বাসের টক্করে দুই বাসের চাপায় পড়ে ডান হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় রাজীবের। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে নিকটস্থ হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও পরদিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে সরকারের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিলো। কিন্তু গত সোমবার দিনগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন ঢামেকের চিকিৎসকরা।

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার বাসিন্দা রাজীব তৃতীয় শ্রেণীতে পড়াকালে মাকে এবং অষ্টম শ্রেণীতে পড়াকালে বাবাকে হারান। এরপর মতিঝিলে খালা জাহানারা বেগমের বাসায় থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পাস করেন। মহাখালীর তিতুমীর কলেজে স্নাতকে ভর্তি হওয়ার পর যাত্রাবাড়ীতে মেসে ভাড়ায় থেকে পড়াশোনা করছিলেন রাজীব। পাশাপাশি তিনি একটি কম্পিউটারের দোকানেও কাজ করছিলেন। নিজের পড়াশোনার পাশাপাশি ছোট দুই ভাইয়ের খরচও চালাতে হতো রাজীবকে।