বৈশাখে ইলিশ কেনার আগ্রহ কমেছে, বেড়েছে মুরগীর দাম

 পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে ইলিশ কেনার প্রতি আগ্রহ কমছে ক্রেতাদের। তবে নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই উৎসবকে পুঁজি করে বাজারে অনেক বিক্রেতাই নিয়ে এসেছেন ইলিশ। তাদের দাবি, নিষেধাজ্ঞা রয়েছে শুধু জাটকা ধরায়। অন্যদিকে দাম বেড়েছে ব্রয়লার মুরগীর।  নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে বাজারে সরবরাহ বেড়েছে ইলিশের। এমন চিত্রই দেখা গেল রাজধানীর পলাশী কাঁচা বাজারে। অন্যান্য বছর পহেলা বৈশাখে চাহিদা বেশি থাকলেও এবার ভিন্ন চিত্র। বৈশাখকে পুঁজি করে বাজারে সব আকারের ইলিশ দেখা গেলেও মিলছে না ক্রেতা। এক হালি ইলিশের দামও চাওয়া হচ্ছে ওজন ভেদে ২৫০০ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত।  ক্রেতারা বলছেন, নির্দিষ্ট দিন নয়, চাহিদা রাখতে হবে সারা বছর। পাশাপাশি কার্যকর মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদারের পরামর্শ তাদের।  বাজারে অন্যান্য মাছের আমদানি কম হওয়ায় কেজিতে প্রায় ৫০ টাকা বেড়েছে বলে জানান বিক্রেতারা। বিপরীতে ভিন্ন মন্তব্য ক্রেতাদের।  এদিকে এক কেজি গরু মাংস ৪৮০ থেকে ৫০০, খাসি ৭-৮’শ টাকায় বিক্রি হলেও একদিনের ব্যবধানে কেজি প্রতি মুরগীর দাম বেড়েছে ৩০ থেকে ৭০ টাকা। প্রতিকূল আবহাওয়া ও সিন্ডিকেটকে দায়ী করছেন অনেকেই।  সপ্তাহ ব্যবধানে সবজির বাজার অনেকটাই স্বাভাবিক। বেগুন ও শসা ছাড়া বাড়েনি অন্যান্য সবজির দাম।