আশুলিয়ায় চাঁদার দাবিতে পরমাণু কর্মকর্তার বহুতল ভবন নির্মাণে বাঁধা

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়ায় ৫ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে পরমাণু গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তার বহুতল ভবন নির্মাণে বাঁধা প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনায় চিহ্নিত দুই চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীসহ অজ্ঞাতনামা ৭ জনকে বিবাদী করে মনিরুজ্জামান মিয়া নামে এক সরকারি কর্মকর্তা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার সকালে আশুলিয়ার ডিইপিজেড এর বিপরীত পাশে ভাদাইল বাজার এলাকায় সোয়া ৮ শতাংশ জমির ওপর নির্মিত ৬ তলা ভবনের নির্মাণ কাজ চলাকালে ভাদাইল এলাকার সাহেদ আলীর ছেলে ফখরুল ইসলাম (৪৫) ও ইদ্রিস আলীর ছেলে সুমনের নেতৃত্বে ৫/৬ জন চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে চলমান নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়। চাঁদার টাকা পরিশোধ না করায় আশুলিয়ার পরমাণু গবেষণা প্রতিষ্ঠান এর সিনিয়র নিরীক্ষক মনিরুজ্জামান মিয়াকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে ওই চাঁদাবাজরা। ঘটনায় ভবনটির নির্মাণ কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদেরও মারধরসহ প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে তারা।
এ ব্যাপারে কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মিয়া বলেন, প্রায় ৩৫ বছর আগে তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা সোয়া ৮ শতাংশ জমি কিনে আধা-পাকা বাড়ি নির্মাণ করে ভোগ দখল করে আসছেন। চলতি মাসের ৮ তারিখ থেকে ওই টিনসেড আধা পাকা বাড়িটি ভেঙ্গে ৬ তলা ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করলে ওই এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজ ফখরুল ও সুমনের নেতৃত্বে ৭/৮ জন নির্মাণাধীন বাড়িতে গিয়ে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। তাদের চাঁদার টাকা না দিয়ে বাড়ির নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখলে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উল্লেখিত বিবাদীরা নির্মাণাধীন ভবনে আসিয়া পুনরায় চাঁদার টাকা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজরা তাকে গালি-গালাজসহ প্রাণনাশের হুমকি দেয় এবং নির্মাণ কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়। তারা আরো জানায় চাঁদার টাকা পরিশোধ না করলে ওই জমিতে কোন কাজ করতে দেয়া হবে না মর্মে হুসিয়ারি দেয়। পরে এলাকাবাসীর সাথে আলাপ আলোচনা সাপেক্ষে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়।