আশুলিয়ায় রিক্সা চলাচলে ইজিবাইক চালকদের বাধা

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়ার গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়ে ওঠা সামাজিক সংগঠন ‘দূর্জয়’ এর নিতান্ত প্রচেষ্টা ও সহযোগিতায় শিক্ষার্থীদের কল্যাণে গত শনিবার ইজিবাইক ও রিক্সা মালিকেরা বাইশমাইল থেকে গণ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত ভাড়া কমিয়েছে। ৫ টাকা কমিয়ে এখন থেকে রিক্সাভাড়া ১০ টাকা ও অটোবাইক ভাড়া ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

গত শনিবার ভাড়া ৫ টাকা করে কমাতে বলা হলে ইজিবাইক মালিকরা মেনে নিলেও রবিবার তারা রিক্সা চলাচলে বাধা প্রদান করতে দেখা যায়। ইজিবাইক চালকরা রিক্সাচালকদের তাড়িয়ে দিয়ে নিজেরা একচ্ছত্রভাবে রাস্তায় চলার সুযোগ করে নেয়ার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। সকাল হতেই লাঠিসোটা নিয়ে বাইশমাইলে অবস্থান নিয়েছেন অটোবাইক মালিকেরা। রিক্সা আসতে দেখলেই তাদের সরিয়ে দিচ্ছেন এবং বাইশমাইলে স্ট্যান্ড না করার হুমকি দিচ্ছেন।

গত বছরের বৃষ্টিতে রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়া সহ বিভিন্ন অজুহাতে হঠাৎ করেই ইজিবাইক ভাড়া বাড়িয়ে ১০ টাকা করে নেয় অটো-মালিক সমিতি। শুরুর দিকে, শিক্ষার্থীরা ইজিবাইক ভাড়া ৫টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা দিতে আপত্তি করলেও, বিকল্প যাতায়াত ব্যবস্থা না থাকার কারণে অটোবাইক ভাড়া ১০ টাকা দিতে বাধ্য হতে হয় সাধারণ শিক্ষার্থীদের। ইজিবাইক চালকদের পথ অনুসরণ করে অটো-রিক্সা চালকরাও রিক্সা ভাড়া ১৫-২০ টাকা করে নেয়। এতে করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ দ্বিগুণ পরিমাণে বেড়ে যায়। ৫ টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা ভাড়া দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসতে হতো সাধারণ শিক্ষার্থীদের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রিক্সাচালক জানান, “ সকাল হতেই আমাগোঁর সাথে খারাপ ব্যবহার করতাছে অটো-অলারা, তিন বছর এইহানে রিক্সা চালাই। রাস্তায় আমাগোরে রিক্সা নিয়ে যাইতে দিতেছে না। মামা, আপনারাই বলেন আমরা তাইলে কই যামু? আমাগোরও তো মাইয়া পোলা আছে।”

উল্লেখ্য, দূর্জয় গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত একটি সামাজিক সংগঠন। এর আগেও বিশ্ববিদ্যালয় এবং এর আশেপাশে উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হতে দেখা গেছে দূর্জয় এর।