আবার বাড়ল শূন্য কোটায় হজ নিবন্ধনের সময়

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় শূন্য কোটায় হজ নিবন্ধনের সময়সীমা আবার বৃদ্ধি করেছে ধর্মমন্ত্রণালয়। সরকারি ব্যবস্থানায় ৬৪১ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬ হাজার ৩৬০ জনসহ মোট ৭ হাজার ১ জনের শূন্য কোটা পূরণে আজ (রোববার) থেকে ১০ এপ্রিল (মঙ্গলবার) পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে। শনিবার ধর্মমন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারি সচিব আবদুল্লাহ আরিফ মোহাম্মদ স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত পৃথক দুটি জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় ‘সরকারি ব্যবস্থাপনায় ২০১৮ সালের জন্য (হজগাইড ও রাষ্ট্রীয় খরচের হজযাত্রীর সংখ্যা ব্যতিত) হজযাত্রীর নির্ধারিত সংখ্যা ৬ হাজার ৭৪০ জন পূরণের লক্ষ্যে ৬৪১ জনের কোটা খালি আছে’। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি-১৪৩৯ হিজরি/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ অনুচ্ছেদ ৩.১.৮ অনুযায়ী ‘পরবর্তী অপেক্ষমান তালিকা হতে ক্রম অনুযায়ী খালি (অপূরণকৃত) কোটার সমসংখ্যক প্রাক-নিবন্ধিত হজ গমনেচ্ছুদের নিবন্ধনের জন্য আহ্বান করা হবে। অবশিষ্ট ৬৪১ জনের কোটা পূরণের লক্ষ্যে প্রাক-নিবন্ধিত ব্যক্তিদের নিবন্ধনের জন্য আহ্বান করা হলো। (সংশ্লিষ্ট প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীদের নিবন্ধনের বিষয়ে আগে আসলে আগে পাবেন মর্মে সুযোগ দেয়া হবে।)’ ‘এছাড়া ২০১৮ সালে হজে গমনেচ্ছুদের মধ্যে ইতোমধ্যে যারা প্রাক-নিবন্ধন করেও নিবন্ধনে ব্যর্থ হয়েছেন, তারাও অগ্রাধিকারভিওিতে নিবন্ধন সুযোগ পাবেন। ৬৪১জনের কোটা পূরণ হয়ে যাওয়ার পর নতুন করে ব্যক্তি প্রাক্-নিবন্ধন করলে তাকে ২০১৯ সালের হজে গমনের জন্য অপেক্ষমাণ থাকতে হবে।’ পৃথক জরুরী বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২০১৮ সনে হজে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজ গাইড ও মোনাজ্জেম ব্যতীত নির্ধারিত কোটা ১ লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জন পূরণের জন্য ৫ এপ্রিল পর্যন্ত নির্ধারিত প্রাক-নিবন্ধিত তালিকার ক্রমিকের মধ্যে ১ লাখ ১০ হাজার ২৪০ জন নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। নির্ধারিত সংখ্যা ১ লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জন পূরণের জন্য এখনও কোটা খালি আছে’। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় ‘জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি ১৪৩৯ হিজরি/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ এর অনুচ্ছেদ ৩.১.৮ অনুযায়ী পরবর্তী অপেক্ষমান তালিকা হতে ক্রম অনুযায়ী খালি (অপূরণকৃত) কোটার সমসংখ্যক প্রাক-নিবন্ধিত হজে গমনেচ্ছুদের নিবন্ধনের জন্য আহ্বান করা হবে মর্মে উল্লেখ রয়েছে। মোট ১ লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জনের নির্ধারিত সংখ্যার মধ্যে খালি ৬ হাজার ৩৬০ জনের উক্ত কোটা পূরণের লক্ষ্যে প্রাক-নিবন্ধনের ক্রম অনুযায়ী প্রাক-নিবন্ধনের ৩,৭২,৬৫৭ থেকে ৩,৭৮,৫৩২ ক্রমিক পর্যন্ত প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীদের নিবন্ধনের চূড়ান্ত সময়সীমা আগামী ৮ এপ্রিল থেকে ১০ এপ্রিল বিকেল ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করা হলো। জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি ১৪৩৯ হিজরি/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ এর ৩.১.১৬ অনুযায়ী এই বিজ্ঞপ্তিতে প্রকাশিত ক্রমের বাইরে কারো কাছ হতে হজ প্যাকেজের অবশিষ্ট অর্থ গ্রহণ করা যাবে না এবং উক্ত নীতির ৩.১.৮ অনুচ্ছেদ অনুসারে উল্লিখিত তারিখের পরে পরবর্তী ক্রমিক থেকে নিবন্ধন সম্পন্ন করা হবে।’