ঈশ্বরদীতে গুলি করে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে হত্যা

ঈশ্বরদী সংবাদদাতা : পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সদরুল আনাম পিন্টুকে (৩০) গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।  সোমবার ভোরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পিন্টু মারা যান।  পিন্টু পাকশী ইউনিয়নের চররূপপুর গ্রামের আজাদ মালের ছেলে। তিনি ঈশ্বরদী পৌর মেয়র ও ভূমিমন্ত্রীর জামাতা আবুল কালাম আজাদ মিন্টুর ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।   পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি-ঈশ্বরদী সার্কেল) জহুরুল হক জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২০১৫ সালের ১ জুন একই দলের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৌরভ হোসেন টুনটুনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে কাঁধের নিচ থেকে বাঁ হাত কেটে বিচ্ছিন্ন করা হয়। সেই মামলার প্রধান আসামি ছিলেন পিন্টু।  ‘ধারণা করা হচ্ছে, এর জের ধরে গতকাল রবিবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে পাকশী ইউনিয়নের রূপপুর পাকার মোড় এলাকায় প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে লক্ষ্য করে কয়েকটি গুলি ছোড়ে। এ সময় পিন্টুর শরীরে তিনটি গুলি লাগে। পরে তাকে রামদা ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষ।’  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় পিন্টুকে প্রথমে ঈশ্বরদীর একটি ক্লিনিকে নিয়ে যান স্থানীয়রা। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই মারা যান তিনি।  এ ব্যাপারে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিমুদ্দিন জানান, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে কেউ এখনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের শত শত নেতাকর্মী সোমবার সকাল থেকেই ঈশ্বরদী-কুষ্টিয়া মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে।