গোপালগঞ্জের নৈশ বাস খাদে পড়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮

গোপালগঞ্জ সংবাদদাতা : গোপালগঞ্জের মকসুদপুরে একটি নৈশ বাস খাদে পড়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮জনে। এছাড়াও আরো অন্তত ২৬ জন যাত্রী আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শনিবার দিবাগত রাত পৌনে তিনটার দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের গোপালগঞ্জের মকসুদপুর উপজেলার বরইতলায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বরিশালগামী সুগন্ধা পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই বাসের ছয় যাত্রী নিহত হন। পরে হাসপাতালে আরো দুইজনের মৃত্যু হয়। আহত হন আরো অন্তত ২৬ জন যাত্রী। মুকসুদপুর উপজেলার সিন্ধয়াঘাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মহিদুল ইসলাম জনান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বরিশালগামী সুগন্ধা পরিবহনের বাসটি বিশম্বরদি এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময় চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। বাসটি সেখানে একটি কালভার্টের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে রাস্তার পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ছয়জন নিহত হন। ভাঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা পরে ২৮ জনকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ পাসপাতালে পাঠায়। আহতদের মধ্যে দীপন বিশ্বাস নামে ২৮ বছর বয়সী এক যুবকসহ দুইজন হাসপাতালে মারা যায় বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়। নিহত দীপন বরিশাল আগৈলঝাড়ার মাখন বিশ্বাসের ছেলে।

এসআই মহিদুল জানান, নিহত বাকি ছয়জনের লাশ ভাঙ্গা হাইওয়ে থানায় রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যে ওই বাসের সুপারভাইজার অসীম মাঝি (৩৫) ও হাসান মিয়া (২৫) নামে এক যাত্রীর পরিচয় জানা গেছে।