জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি হত্যা মামলার আইনজীবী নিখোঁজ

রংপুর সংবাদদাতা : রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি ও মাজারের খাদেম রহমত আলী হত্যা মামলার আইনজীবী ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা রথীশ চন্দ্র ভৌমিককে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। শুক্রবার সকাল থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।  রথীশ চন্দ্র ভৌমিক রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি এবং মাজারের খাদেম হত্যা মামলার আইনজীবী ছাড়াও মানবতা বিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাক্ষীও ছিলেন।  এ ঘটনায় শনিবার সকালে ঢাকা-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক ও ঢাকা-রংপুর রেলপথ অবরোধ করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।   ২০১৫ সালের ৩ অক্টোবর সকালে কাউনিয়া উপজেলার নাছনিয়া বিল আলুটারী এলাকায় জাপানি নাগরিক কুনিও হোশিকে দুর্বৃত্তরা গুলি হত্যা করে। এ ব্যাপারে কাউনিয়া থানার তৎকালীন ওসি রেজাউল করিম বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৩ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।  পরে ২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে মামলাটি বিচার কাজ শুরু হয়। এ মামলায় ২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারি সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করে আদালত।  এর আগে রংপুরের বিশেষ জজ নরেশ চন্দ্র সরকার শুনানি শেষে ৭ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করেন।  এসময় আদালতে জেএমবি নেতা মাসুদ রানা, ইসাহাক আলী, আবু সাইদ, শাখাওয়াত হোসেন ও লিটন মিয়া উপস্থিত ছিল। এর আগে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তাদের আদালতে নিয়ে আসা হয়।  সরকার পক্ষের আইনজীবী বিশেষ পিপি রথীশ চন্দ্র ভৌমিক আদালতকে জানান, জেএমবির মাসুদ রানা, এছাহাক আলী, লিটন মিয়া, আবু সাঈদ, সাদ্দাম হোসেন, আহসান উল্লাহ আনছারী, নজরুল ইসলাম ওরফে বাইক হাসান ও শাখাওয়াত হোসেন জাপানি নাগরিক কুনিও হোশিকে হত্যা করেছে। এই ‍৮ জঙ্গির মধ্যে নজরুল ইসলাম ওরফে বাইক হাসান পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হন। এর মধ্যে সাদ্দাম হোসেন ও আহসান উল্লাহ আনছারী পলাতক।  এ সময় বিজ্ঞ বিচারক আসামিদের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষের দেয়া অভিযোগ পড়ে শোনালে আসামীরা নিজেদের নির্দোষ বলে দাবি করে।  আসামীদের পক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য আবুল হোসেন ও আলাউদ্দিন আহাম্মেদকে আইনজীবী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে আদালত।