হজ নিবন্ধনকারীর সংখ্যা ৯০ হাজার ছাড়িয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৯০ হাজারেরও বেশি হজগমনেচ্ছু নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫ হাজার ৮৫৯ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৮৪ হাজার ১৬৬ জনসহ মোট ৯০ হাজার ২৫ জন নিবন্ধন করেছেন। প্রাকনিবন্ধিত হজগমনেচ্ছুদের নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয় ১ মার্চ। আর মাত্র তিনদিন পরই হজ নিবন্ধনের জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বেঁধে দেয়া ১ এপ্রিলের সময়সীমা শেষ হবে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ১ এপ্রিলের পর হজ ও ওমরাহ নীতি অনুযায়ী পরবর্তী ক্রমিক থেকে নিবন্ধন সম্পন্ন করা হবে। সে ক্ষেত্রে পূর্বঘোষিত ক্রমিকের প্রাকনিবন্ধিত আর কেউ নিবন্ধনের সুযোগ পাবেন না। সৌদি সরকারের সঙ্গে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের করা হজ চুক্তি অনুসারে চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার যাত্রী হজ পালন করবেন। মোট হজযাত্রীর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় গাইড ও রাষ্ট্রীয় খরচে হজযাত্রীর/মোনাজ্জেমের জন্য ৪৫৮ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩ হাজার ৪শ জনের জন্য কোটা সংরক্ষিত রয়েছে। এ হিসেবে নিবন্ধনযোগ্য হজযাত্রীর সংখ্যা সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬ হাজার ৭৪০ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ১৬ হাজার ৬০০জন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধনযোগ্য সর্বশেষ ক্রমিক ১৬ হাজার ৭৪ ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩ লাখ ৫২ হাজার ২৯৩। সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ-১ এর আওতায় হজে যেতে এবার তিন লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এর আওতায় তিন লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা লাগবে।

প্রাকনিবন্ধনের সময় জমা দেয়া ২৮ হাজার টাকা বাদে প্যাকেজ-১ এর হজযাত্রীদের তিন লাখ ৬৯ হাজার ৯২৯ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এর যাত্রীদের তিন লাখ তিন হাজার ৩৫৯ টাকা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত ব্যাংকে জমা দিতে হচ্ছে। যারা ২০১৫, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে হজ করেছেন অথবা ভিসা পেয়েও হজে যাননি তাদের মধ্যে যারা এবার হজ করবেন তাদের অতিরিক্ত ৪৬ হাজার ৯৩৫ টাকা ওই অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে। কেউ আলাদা ফ্লাইটে হজে যেতে চাইলে অবশ্যই আলাদাভাবে নিবন্ধন করতে হবে। উল্লেখ্য, আগামী ১৪ জুলাই হজ ফ্লাইট শুরুর কথা রয়েছে। আর চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২১ আগস্ট হজ হতে পারে।