খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়লো ৫ এপ্রিল পর্যন্ত

স্টাফ রিপোর্টার : জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ আগামী ৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়েছে আদালত। অসুস্থতার কারণে কারাগার থেকে বুধবার আদালতে হাজির হতে না পারায় পুরান ঢাকার বকশী বাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এই আদেশ দেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমরা আশা করেছিলাম ম্যাডামকে আদালতে হাজির করা হবে। তবে (খালেদা) উনার কাসটডিতে বলা হচ্ছে উনি অসুস্থ। আমরা খুবই চিন্তিত এবং উদ্বিগ্ন।’ এর আগে বুধবার সকাল ১১টা ৪৫ মিনিটে বিচারক তার এজলাসে আসেন। এসময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশারফ হোসেন কাজল জানান, অসুস্থতার কারণে খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা সম্ভব হয় নাই। এর আগে গত রবিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা বাড়ানোর আবেদন জানিয়ে হাইকোর্টে আপিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদক কৌসুলি খুরশীদ আলম খান জানিয়েছিলেন, এ মামলায় বয়স, শারীরিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় প্রধান আসামিকে দেয়া হয়েছে ৫ বছর কিন্তু সহযোগীদের দেয়া হয়েছে ১০ বছর করে সাজা। সুতরাং প্রধান আসামির সাজাটা অপর্যাপ্ত মনে করে নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে আপিল করেছে দুদক। জানা গেছে, ১৯ মার্চ সোমবার দুদকের এক সভায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে আপিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে দুদক আইনজীবীদের এ সংক্রান্ত সব আইনগত প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেন।এ মামলায় তারেক রহমানসহ অপর পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদন্ড দেয়া হয়। রায়ে বলা হয়, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রামাণিত হলেও বয়স ও সামাজিক মর্যাদা বিবেচনা করে খালেদা জিয়াকে ১০ বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছর সাজা দেয়া হল। জানা গেছে, দুদকের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে খালেদা জিয়ার দন্ড ১০ বছর করতে আবেদন করা হয়েছে।