ভালুকায় গভীর রাতে বিস্ফারণে দগ্ধ ৩জন ঢামেকে ভর্তি, বাড়িটি ঘিরে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার : শনিবার দিবাগত গভীর রাতে ময়মনসিংহের ভালুকার মাস্টারবাড়ি এলাকায় হঠাৎ বিকট শব্দে বিস্ফোরণে তিনজন দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে অপর একজন মারা গেছেন বলে লোকমুখে শোনা গেলেও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে পুলিশ বাড়িটি ঘিরে রেখেছে বলে স্থানীয় জানিয়েছেন। পুলিশ সন্দেহ করছে বাড়িটি জঙ্গি আস্তানা হতে পারে। তবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেছেন, এটি জঙ্গি আস্তানা ‍কিনা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। পুলিশ সদস্যরা ভবনের চারপাশে অবস্থান নিয়েছেন। তিনি আরো জানান, ঢাকা থেকে বোম ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা আসার পর বাড়িটি জঙ্গি আস্তানা কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

স্থানীয় জানায়, রাত আনুমানিক ১টার দিকে মাস্টারবাড়ি এলাকার ৬ তলা ভবনের ৩ তলায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ তিনজনকে প্রথমে ভালুকা হাসপাতালে এবং পরে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। আহতরা হলেন শাহীন, দীপ্ত ও হাফিজ।

রবিবার ভোরে ভালুকা থেকে দগ্ধ অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসে। ঢাকা মেডিকেল পুলিশ বক্স (এসআই) বাচ্চু মিয়া জানান, ভালুকায় একটি বাড়িতে বিস্ফারণের ঘটনায় দগ্ধ শাহীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার শরীরে ৮৩ শতাংশ পুড়ে গেছে। এছাড়া দীপ্ত সরকারের শরীরের ৪৫ ভাগ ও হাফিজের ৫০ ভাগ পুড়ে গেছে। তিনি আরো জানান, দগ্ধ শাহীনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসে রুবেল ও সোহেল রানা নামে দুই যুবক। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।

দগ্ধ শাহীনের বরাত দিয়ে বার্ন ইউনিটে একটি সূত্র জানান, তার বাড়ি সিরাজগঞ্জ শাহাজাদপুরে। তিনি খুলনা থেকে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে ভালুকায় একটি সার্ভিস সেন্টারে প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন। ঘটনার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানাতে পারেননি।

ভালুকা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার রকিবুল হাসান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বিস্ফোরণে ওই ভবনের ৩ তলার দেয়াল ভেঙে পড়েছে।