উইন মিন্ট হচ্ছেন মায়ানমারের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট

 মায়ানমারের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন নিম্নকক্ষের সদ্য পদত্যাগকৃত স্পিকার উইন মিন্ট। প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে শুক্রবার নিম্নকক্ষে সু চির দল এনএলডি সংখ্যাগরিষ্ঠ হিসেবে তাকে ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেছে।  শুক্রবার ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে উইন মিন্ট সেনা নিয়ন্ত্রিত ইউনাইটেড সলিডারিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির প্রার্থী থাং অয়েকে বিপুল ভোটে পরাজিত করেন। উইন মিন্ট পান ২৭৩ ভোট যেখানে তার নিকটবর্তী প্রার্থী ভোট পান মাত্র ২৭টি।  ৬৬ বছর বয়সী মায়ানমারের হবু প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট এনএলডির একজন বিশ্বস্ত ও প্রভাবশালী সদস্য। তিনি ১৯৮৮ সালে সুচির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাজপথে আন্দোলন করেছিলেন। রাজনীতিক হিসেবে তিনি জেলও খেটেছেন। ১৯৯০ সালের পার্লামেন্ট নির্বাচনে তিনি একজন সফল প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু সেই নির্বাচন সামরিক জান্তা বাতিল ঘোষণা করে।   মায়ানমারের সংবিধান অনুসারে, কোনো প্রেসিডেন্টের মৃত্যু হলে বা অবসরে গেলে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্ষমতা পাবেন। এরপর নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরপর তিনজন ভাইস প্রেসিডেন্টের মধ্য থেকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করা হবে।  মায়ানমারের প্রেসিডেন্ট থিন কিয়াউয়ের পদত্যাগের পর দেশটির পরবর্তী প্রেসিডেন্ট কে হচ্ছেন তা নিয়ে আলোচনা চলছে। দীর্ঘদিন ধরে ব্যাংকক ও সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন থাকা থিনের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। পদত্যাগের কারণ হিসেবে তিনি বিশ্রামের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেছেন।  মায়ানমারের ডি-ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চির অত্যন্ত বিশ্বস্ত বলে পরিচিত ছিলেন পদত্যাগী প্রেসিডেন্ট। সংবিধান অনুসারে প্রেসিডেন্টের নির্বাহী ক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু কার্যত তিনি ছিলেন পুতুল প্রেসিডেন্ট। মূলত সু চি-ই নির্বাহী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন।  দেশটির সংবাদমাধ্যম ইরাবতির এক খবরে বলা হয়েছে, সু চির জন্য এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ তার প্রতি বিশ্বস্ত ও অনুগত একজন প্রেসিডেন্টকে দায়িত্ব দেয়া। মায়ানমারের সংবিধান অনুসারে, কোনো প্রেসিডেন্টের মৃত্যু হলে বা অবসরে গেলে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্ষমতা পাবেন। এরপর নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরপর তিনজন ভাইস প্রেসিডেন্টের মধ্য থেকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করা হবে।  সেনাবাহিনীর সাবেক জেনারেল মিন্ত সোয়ে এখন প্রথম ভাইস-প্রেসিডেন্ট। ফলে তিনিই এখন ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। আর পরবর্তী সাতদিনের মধ্যে দেশটির পার্লামেন্ট নতুন প্রেসিডেন্টকে নিয়োগ দেবে।  ইরাবতি জানায়, প্রেসিডেন্ট হিসেবে সু চি ও তার দল এনএলডি’র পছন্দের ব্যক্তি হচ্ছেন নিম্নকরে স্পিকার উইন মিন্ত (৬৭)। তিনি সু চি’র প্রতি বিশ্বস্ত বলে পরিচিত। প্রেসিডেন্টের আচমকা পদত্যাগের দিনই স্পিকারের দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন তিনি। ফলে ধারণা করা হচ্ছে, তিনিই হবেন মায়ানমারের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট।  পদত্যাগী প্রেসিডেন্টের সাথে মায়ানমারের সেনাবাহিনীর সম্পর্ক ভালো ছিল। নতুন প্রেসিডেন্টের জন্যও সেনাবাহিনীর সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখাই হবে প্রধান চ্যালেঞ্জ। ইরাবতির মতে, সেনাবাহিনীর সাথে উইন মিন্তের সম্পর্কে উত্থান পতন রয়েছে। রণশীল ও দলের প্রতি অনুগত বলে পরিচিত এ নেতা সরকার ও পার্লামেন্টের রায় সক্রিয় ছিলেন।  মায়ানমারের পার্লামেন্ট হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের নতুন স্পিকার হিসেবে উ টি খুন মিয়ন্ত নির্বাচিত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার নাইপিদোতে দেশটির পার্লামেন্টে অনুষ্ঠিত এক অধিবেশনে তাকে নির্বাচন করা হয়। উ টি খুন হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের সাবেক ডেপুটি স্পিকার ছিলেন। এ নির্বাচনের মধ্যদিয়ে উ উইন মিয়ন্ত’র শূন্যতা পূরণ হলো। উ উইন মিয়ন্ত বুধবার স্পিকারের পদ থেকে পদত্যাগ করায় এ শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছিল।