বিএনপি এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টি : ওবায়দুল কাদের

নরসিংদী সংবাদদাতা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপিকে নিয়ে বিচলিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। বিএনপি এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টি হিসেবে পরিচিত। বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সফরে এসে নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত নরসিংদী মুসলেহ উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম জিয়া কারাগারে থাকলে বিএনপি ভেবেছিল  আন্দোলনে জোয়ার আসবে। কিন্তু মরা গাঙ্গে কখনো জোয়ার আসে না। এদেশে আর পরাজিত শক্তির উত্থান হবে না। বিএনপি এখন জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাদের আর আন্দোলন করার কোনো শক্তিই নেই। দীর্ঘ ৯ বছর বিএনপি আন্দোলনকে সক্রিয় করতে পারেনি, আর ভবিষ্যতেও পারবে না। ‘এ বছর না সে বছর, এই ঈদ না সেই ঈদ’ বলে আন্দোলনের নামে জনগণের সঙ্গে করে এসেছে ভাঁওতাবাজি।

নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু (বীরপ্রতীক) এমপির সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, মুকুল বোস, শ্রমবিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য ও স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাড. এবিএম রিয়াজুল কবির কাউছার, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নরসিংদী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মতিন ভূইয়ার সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, সাবেক সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ, জহিরুল হক ভূইয়া মোহন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান ভূইয়া, সহ-সভাপতি জিএম তালেব হোসেন, নরসিংদী পৌর মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল, মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিক, ঘোড়াশাল পৌর মেয়র শরিফুল হক, শিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন অর রশিদ খান, মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. ফজলুল হক, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সফর আলী ভূইয়া, রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আফজাল হোসেন প্রমুখ।

ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, মৌসুমি পাখিদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেবেন না। ক্ষমতা চলে গেলে তাদের খুঁজে পাবেন না। দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করুন। তারা আছে বলেই আওয়ামী লীগ আছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এখনো বেঁচে আছে। বর্তমানে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই, আছে শুধু নৌকা। দলীয় জরিপে যিনি এগিয়ে থাকবেন, তাকেই নৌকা প্রতীক দেওয়া হবে। সব দ্বিধাদ্বন্দ্ব ভুলে গিয়ে যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে, তার পক্ষেই কাজ করতে হবে। মনে রাখবেন চাঁদেরও কলংক আছে, ৯ বছর দেশ শাসন করতে গিয়ে আমাদেরও কিছু ভুল-ত্রুটি থাকতে পারে। সেই ভুলগুলোকে শুধরিয়ে নিয়ে আগামী দিনের পথ চলাকে বেগবান করতে হবে। আওয়ামী লীগ সরকারের ৯ বছর শাসনামলে যে উন্নয়ন হয়েছে, বিগত ৫০ বছরেও এদেশে এত উন্নয়ন হয়নি। পদ্মা এখন দৃশ্যমান। মেট্রোরেলের কাজ এগিয়ে চলছে। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্ব স্বীকৃতি পেয়েছে।