সিংগাইরে দু’শিশু সন্তানকে বিষ খাইয়ে মায়ের আত্মহত্যার ঘটনায় প্রবাসী স্বামীসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মাসুম বাদশাহ্, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) থেকে : সিংগাইর উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের রামকান্তপুর গ্রামের প্রবাসী আব্দুল আজিজের স্ত্রী রিনা আক্তার তার দু’শিশু সন্তানকে বিষ খাইয়ে আত্মহত্যার ঘটনায় গত শনিবার রাতে ৩০৬ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতের পিতা বাচ্চু মোল্লা বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।
মামলার আসামীরা হচ্ছে-নিহতের সৌদি প্রবাসী স্বামী আব্দুল আজিজ (৩০), তার বাবা সিদ্দিক আলী (৭৫), মাতা মাজেদা (৫৫), ভাইদ্বয় সোলাইমান (৪০) ও বাহাদুল (২৫)। এজাহারভুক্ত আসামীদের মধ্যে পুলিশ বাহাদুলকে গ্রেফতার করে  রবিবার আদালতে প্রেরণ করেছেন। মামলার তদন্তকর্মকর্তা এসআই সজিবুর রহমান বলেন, বাকি আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
এদিকে বিষপানে গৃহবধূ রিনা মারা গেলেও তার দু’সন্তান সংগীতা (৮) ও রায়হান ( ৪) শংকামুক্ত রয়েছে। তাদের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে শিশুদ্বয় চিকিৎসাধীন রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, নিহত রিনা আক্তারের বৃদ্ধ শ্বশুর ছিদ্দিক আলী এমন দুর্ঘটনা সহ্য না করতে পেরে রবিবার হার্ট অ্যাটাক করেছেন। একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে তার চিকিৎসা চলছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রিনা আক্তার তার দু’সন্তানকে বিষ খাইয়ে আত্মহত্যার ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে প্রবাসী স্বামীর উপার্জিত টাকা ব্যয় নিয়ে দ্বন্দ্ব। স্বামী আব্দুল আজিজের পাঠানো টাকা রিনা আক্তার তার বাবার বাড়ির লোকজনের পেছনে ব্যয় করা নিয়ে গত শুক্রবার স্বামী স্ত্রীর মধ্যে টেলিফোনে ঝগড়া-ঝাটি। ক্ষোভে-অভিমানে রিনা আক্তার রাতেই জুসের সাথে কীটনাশক মিশিয়ে দু’সন্তানসহ নিজে পান করেন। পরিবারের লোকজন টের পেয়ে অসুস্থ্য ৩ জনকে উদ্ধার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের ঢাকায় রেফার্ড করেন। এ সময় রিনার খালা রুমা ও রিনাকে সাভারস্থ এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং আব্দুল আজিজের পরিবার শিশু সন্তানদ্বয়কে ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করেন। এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রিনার মৃত্য ঘটলেও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দু’শিশু সন্তান শংকামুক্ত রয়েছে। নিহত রিনার ভাসুর সোলায়মান ও তার পরিবারের দাবী বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা পয়সা হিসেব নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্দ্বে বিষপানে এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে।
এ ব্যাপারে সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ খোন্দকার ইমাম হোসেন বলেন, এজাহারভুক্ত একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।