প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নেপালের পথে মেডিকেল ও সিআইডি টিম

 ঢাকা থেকে নেপালের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছে সরকারি মেডিকেল টিম। বিএস২১১ ফ্লাইট বিধ্বস্তে নিহতদের  ডিএনএ সংগ্রহ, ময়নাতদন্তের এবং তাদের চিকিৎসার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে যাচ্ছে এ মেডিকেল টিম।  বৃহস্পতিবার (১৫ মার্চ) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি ০৭১ ফ্লাইটে ওঠার আগে সকাল ১০টার দিকে মেডিকেল টিমের সদস্যরা সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।  ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদের নেতৃত্বে এ টিমে রয়েছেন ছয় চিকিৎসক ও দু’জন সিআইডি কর্মকর্তা।  টিমের অন্য চিকিৎসকদের মধ্যে রয়েছেন জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালের (পঙ্গু হাসপাতাল) সার্জন ডা. রাজিব আহমেদ, ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন ডা. হোসেন ইমামও। আর দুই সিআইডি কর্মকর্তা হলেন অ্যাডিশনাল সুপারিটেন্ডেন্ট অব পুলিশ (ক্রাইম সিন, সিআইডি) আবদুস সালাম ও অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিএনএ স্পেশালিস্ট (সিআইডি) আশরাফুল আলম।  নেপাল এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষকে দায়ী করলো ইউএস-বাংলা কাঠমান্ডু: নেপালে বিমান দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত পুরোদমে শুরু হবার আগেই দায়দায়িত্ব নিয়ে অভিযোগ পাল্টা-অভিযোগ শুরু হয়ে গিয়েছে। কাঠমান্ডু বিমানবন্দরের ট্রাফিক কন্ট্রোল টাওয়ারের গাফিলতিকে দায়ী করছে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স।  এয়ারলাইন্সটি বলছে, তাদের বৈমানিক বেঁচে আছেন এবং বৈমানিকদের দিক থেকে কোন ত্রুটি ছিলোনা বলেই মনে করছেন তারা।  অন্যদিকে, নেপাল কর্তৃপক্ষ পাইলটকেই দোষারোপ করছে।  নেপালে বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম বলেছেন, বিমানটিকে দক্ষিণ দিক থেকে নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটি নামে বিমানবন্দরের উত্তর দিক থেকে।  তিনি আরো বলেন, বিমানটির অস্বাভাবিক এই অবতরণের কারণ সম্পর্কে আমরা নিশ্চিত করে এখনও কিছু বলতে পারছি না।  ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের সিইও আসিফ ইমরান বলেন, দুর্ঘটনার আগে বিমানের ক্যাপ্টেন ও কাঠমান্ডু এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল বা এটিসি-র মধ্যেকার কথোপকথন তারা পেয়েছেন এবং সেটি ইউটিউবেও পাওয়া যাচ্ছে।  এক সময় তার মোবাইল থেকে তিনি সেই কথোপকথনের কিছুটা শোনান।  ‘নেপাল কাঠমান্ডু টাওয়ারের গাফলতি ছিলো পাইলটদের ভুল বার্তা দেয়ার। সে কারণেই দুর্ঘটনাটি হয়েছে।’  মিঃ ইমরান বলেন, পাইলটদের সাথে এটিসি টাওয়ারের ল্যান্ডিংয়ের আগের কথোপকথনে ছিলো রানওয়ের কোন দিক থেকে পাইলট ল্যান্ড করবেন।  ‘তিন মিনিটের মধ্যে আমাদের পাইলটকে বিভিন্ন বার্তা দেয়া হয়েছে। এ বার্তা দিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ার কারণেই দুর্ঘটনা হতে পারে বলে আমি মনে করছি,’’ -ইমরান বলেন। ‘পাইলটদের বিভ্রান্ত করেছে ভুল রানওয়েতে নামার জন্য।’ যদিও নেপালে বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম বলেছেন, বিমানটিকে দক্ষিণ দিক থেকে নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটি নামে বিমানবন্দরের উত্তর দিক থেকে।  এছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নেপালের গণমাধ্যম বলছে, দুর্ঘটনার আগে বিমানটি অদ্ভুত আচরণ করেছে।  এ সব কারণে প্রশ্ন ওঠে যে পাইলটদের তরফ থেকে কোন ত্রুটি ছিলো কি-না। তবে ইউএস বাংলার সিইও এ ধরনের সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিয়েছেন।  তিনি বলেন, ক্যাপ্টেন আবিদ হাসান জীবিত আছেন। উনি এয়ারফোর্সে ছিলেন আগে। এ ফ্লাইটের তিনি একজন প্রশিক্ষক। কথোপকথন শোনার পর আমাদের মনে হচ্ছে না যে আমাদের পাইলট কোন ভুল করেছে। আপনারা যদি কথোপকথন শোনেন বা যে কোন বোদ্ধাই একথা বলবে।  এদিকে দুর্ঘটনার পরপরই নেপালের প্রধানমন্ত্রীর সাথে ফোনে কথা বলেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ থেকে একটি সাহায্যকারী দল পাঠানো হবে বলেও জানিয়েছেন।  সিঙ্গাপুর সফরে থাকা প্রধানমন্ত্রী এক ভিডিও বার্তায় তিনি হতাহতের জন্য শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন।  ওদিকে বাংলাদেশের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম নাইম হাসান ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন যে তারা তিন সদস্যের একটি তদন্ত দল গঠন করেছেন এবং দলটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাঠমান্ডু গিয়ে তদন্ত শুরু করবে।