আশুলিয়ায় ‘শক্তিবর্ধক হালুয়া’ খেয়ে ২ জনের মৃত্যু 

আশুলিয়া ব্যুরো : সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানা এলাকায় ‘বিষক্রিয়ায়’ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা রাস্তার কবিরাজের বিক্রি করা কথিত শক্তিবর্ধক হালুয়া খেয়েছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এছাড়া আরও দুইজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তারা সবাই স্থানীয় বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিক। এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপতালের ব্যবস্থাপক বাবুল হোসেন বলেন, ভাদাইল এলাকা থেকে জিল্লুর রহমান, মোতালেব শেখ, শামীম শেখ ও ফরিদ উদ্দিন নামে চার যুবককে বুধবার গভীর রাতে হাসপাতালে নিয়ে আসেন কয়েকজন।

“তাদের মধ্যে জিল্লুর ও মোতালেবকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তারা বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন চিকিৎসকরা। আর শামিম ও ফরিদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে।”

জিল্লু টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর থানার ধবুলিয়া গ্রামের সবুজ শেখের ছেলে। আর মোতালেব একই গ্রামের জয়নাল আবেদিনের ছেলে। চিকিৎসাধীন শামীম শেখ ওই গ্রামের আবুল শেখের ছেলে। ফরিদ উদ্দিনের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।

আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ফরিদ হোসেন ডিইপিজেডের স্কাইরেক্স ফ্যাশনের সুপারভাইজার জানিয়ে তার এক সহকর্মী জানান, রাতের পালায় ডিউটি থাকায় ফরিদ হোসেন রাত ১০ টায় কারখানায় প্রবেশ করেন। এরপর রাত ১২ টারদিকে আকস্মিকভাবে তিনি বমি করতে এবং ঘামতে থাকেন। পরে তাকে স্থানীয় হাবিব ক্লিনিকে নেয়া হলে তিনি বাসায় হালয়া খাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। ঠিক একই সময় আব্দুল মোতালেব, জিল্লুর রহমান এবং শামীমকে হাসপাতালে নিয়ে আসে তাদের স্বজনরা। তাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখানকার চিকিৎসকরা চারজনকেই এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে দেন। হাসপাতালে আনার পথে আব্দুল মোতালেব ও জিল্লুর রহমান মারা যান।

আশুলিয়া থানার ওসি আবদুল আউয়াল বলেন, তারা ভাদাইলে মোহাম্মদ আলীর বাড়িতে ভাড়া থেকে বিভিন্ন পোশাক কারখানায় কাজ করতেন।

কী ধরনের বিষক্রিয়ায় তারা আক্রান্ত হয়েছেন, সে বিষয়ে পরীক্ষা না করে কিছু বলতে পারছে না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

তবে ওসি বলেছেন, বুধবার গভীর রাতে তারা কারখানা থেকে ফিরে ‘কবিরাজের কাছ থেকে আনা মালমশলা দিয়ে শক্তিবর্ধক হালুয়া তৈরি করে’ খান। কিন্তু কিছুক্ষণ পর অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রতিবেশীরা তাদের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।”

স্থানীয়রা জানান, সাভারের পথেঘাটে একশ্রেণির কথিত কবিরাজ হ্যান্ডমাইকে ‘শক্তিবর্ধক হালুয়া’ বিক্রি করেন।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমজাদুল হক বলেন, “বিভিন্ন জায়গায় এই কথিত শক্তিবর্ধক হালুয়া বিক্রি হয়। কেউ কখনও অভিযোগ দেয়নি। এটা আসলে শক্তিবর্ধক কিনা বা ক্ষতিকর কিনা সে বিষয়ে কোনো তথ্য-প্রমাণ আমার কাছে নেই।”

এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ ইনচার্জ নাসির আহমেদ বলেন, ”পাকস্থলীতে বিষক্রিয়ার কারণে আব্দুল মোতালেব ও জিল্লুর রহমানের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করছি। আইসিইউতে যারা আছেন তারা ্এখনও বিপদ মুক্ত নন।”

ওই চারজনের বিষয়ে খোঁজ নিতে গেলে মোহাম্মদ আলীর বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক নূরুল হক বলেন, “রাতে তারা কি যেন খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তখন মোতালেবের ভাই নাসির উদ্দিন তাদের প্রতিবেশীদের সহায়তায় হাসপাতালে নিয়ে যায়। তারা ঠিক কী খেয়েছিল তা আমি সঠিক জানি না।”