স্বৈরাচারী শাসনের শিকার খালেদা জিয়া: আমীর খসরু

চট্টগ্রাম সংবাদদাতা : বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া সরকারের একদলীয়, ফ্যাসিবাদী ও স্বৈরাচারী শাসনের সবচেয়ে বড় শিকার বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। বুধবার দুপুরে নগর বিএনপির নাসিমন ভবনস্থ কার্যালয় প্রাঙ্গণে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।  সকালে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন জামিনে মুক্ত হওয়ার পর এই তাৎক্ষণিক সভার আয়োজন করা হয়।  আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, “বিএনপির রাজনীতি গণতান্ত্রিক, নিয়মতান্ত্রিক ও বাংলাদেশের জনগণের পক্ষে। আর এক দলীয় শাসক ফ্যাসিস্ট ও স্বৈরাচারী ধারার রাজনীতি করছে।  “তারা অব্যাহতভাবে ক্ষমতা দখলের পায়তারা করছে। এজন্য নিপীড়ন, নির্যাতন, গুম-খুন ও মিথ্যা মামলার মাধ্যমে তারা ভয়ভীতি সৃষ্টি করতে চায়। এর শিকার ডা. শাহাদাত। সবচেয়ে বড় শিকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।”  বৃহস্পতিবার লালদীঘিতে সমাবেশের বিষয়ে জানতে চাইলে আমীর খসরু সাংবাদিকদের বলেন, “অনুমতি অবশ্যই পাব। না পাওয়ার কোনো কারণ নেই।  “সমাবেশ করা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। এটা কেউ হরণ করতে পারে না। দেশে এমন কোনো আইন নেই যে বিরোধী দল সভা করতে পারবে না। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার সংরক্ষণ করা।”  সদ্যমুক্ত ডা. শাহাদাত সংবর্ধনা সভায় বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য গুম-গুপ্তহত্যা, হামলা-মামলার বিরুদ্ধে লড়াই করে যেতে হবে।  “এখন মামলা ইমপোর্ট করা হচ্ছে। দেশনেত্রীর চার মাসের জামিন হওয়ার পরও চৌদ্দগ্রাম থেকে মামলা আমদানি করা হচ্ছে। আমি চট্টগ্রামে অথচ ফেনীতে আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়ে যাচ্ছে।”  সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নগর বিএনপির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান। প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম।  অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর।