সাইনবোর্ড বাংলায় না লেখায় ৫ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

 সাইনবোর্ড বাংলায় না লেখায় পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ভ্রাম্যমাণ আদালত।  বুধবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত রাজধানীর তেজগাঁও, গুলশান লিংক রোডে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।  অভিযানে নেতৃত্ব দেন ডিএনসিসির অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. হেমায়েত হোসেন।  যেসব প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়েছে সেগুলো হলো- সিটিজেন টাওয়ার, ফরচুন ফার্নিচার, এক্সিকিউটিভ মোটরস, বিগ কার বাজার ও শুজো কার শো রুম।  এছাড়া এসব প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণ করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে বাধার সৃষ্টি করায় এক ব্যক্তিকে ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়।  প্রসঙ্গত, হাইকোর্টের ১৬৯৬/২০১৪ নং রিট পিটিশনে প্রদত্ত আদেশ অনুযায়ী সব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও তৎসংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ব্যতীত) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা বাধ্যতামূলক। স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে হাইকোর্টের আদেশটি ডিএনসিসি এলাকায় নিশ্চিত করার দায়িত্ব ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হয়।  এর পরিপ্রেক্ষিতে জানুয়ারি মাসের ২৮ তারিখে দুটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় একটি গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে ডিএনসিসির এখতিয়ারাধীন এলাকার যেসব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও তৎসংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ব্যতীত) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা হয়নি তা অবিলম্বে নিজ উদ্যোগে অপসারণ করে ৭ দিনের মধ্যে বাংলায় লিখে প্রতিস্থাপন করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছিল।  তাছাড়া মাইকিং, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রেস রিলিজ পাঠানোসহ ডিএনসিসির ওয়েবসাইট এবং ফেসবুকেও গণবিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করা হয়। প্রায় সব কয়টি প্রধান প্রধান জাতীয় দৈনিকে এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। হাইকোর্ট এবং ডিএনসিসির আদেশ না মানায় স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোকে জরিমানা করা হয়।  ডিএনসিসির আওতাধীন এলাকার প্রত্যেকটি নামফলক, সাইনবোর্ড ইত্যাদিতে বাংলা ভাষা নিশ্চিত করতে ডিএনসিসির উচ্ছেদ অভিযান ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।