বেশির ভাগই অপরিচিত শর্ত পূরণে ব্যর্থ ৭৬ দল

স্টাফ রিপোর্টার : আবেদন করা নতুন ৭৬টি রাজনৈতিক দলই নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধনের শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছে। এর মধ্যে ২০টি দলের কাগজ পত্রে বেশি অসঙ্গতি থাকায় তদেরকে প্রথম বাছাইয়ে বাদ দিয়েছে ইসি। বাকি ৫৬ দলকে সংশোধনের জন্য ১৫ দিন সময় দিয়ে চিঠি দিবে ইসি। একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নিবন্ধন পেতে নির্বাচন কমিশনের কাছে ৭৬টি নতুন রাজনৈতিক দল আবেদন করেছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই অপরিচিত, নামসর্বস্ব। সেই সঙ্গে রয়েছে নানা বাহারি নামের দলও। ইসির কর্মকর্তারা বলছেন, ৭৬ দলের অনেকগুলোই সাইনবোর্ডসর্বস্ব। অনেক দলের অফিস খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাই এবার হাতেগোনা কয়েকটি দল নিবন্ধন পেতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। সূত্র জানায়, দশম সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আগ্রহী নতুন ৪৩টি রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের আবেদন করেছিল। এর মধ্যে ৪১টিই নির্বাচন কমিশনের কাছে নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দিতে ব্যর্থ হয়। মাত্র ২টি দল শর্ত অনুযায়ী মাঠ পর্যায়ে কার্যালয় ও কমিটি থাকার তথ্য দিয়েছিল। এরপর তাদের নিবন্ধন দেয় কমিশন। একইভাবে নবম সংসদ নির্বাচনের জন্য ২টি দলকে নিবন্ধন দেয় ইসি। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন প্রথা চালু করে প্রথমে ৩৮ দলকে নিবন্ধন দেওয়া হয়। এর মধ্যে পরে দুটি দলের নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় বর্তমান নিবন্ধিত দলের সংখ্যা ৪০টি। এসব বিষয়ে ইসির অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান বলেন, কোন দল সঠিক ভাবে শর্ত পালন করতে পারেনি। তবে বাছাইয়ে কয়েকটি দল পুরো পুরি অযোগ্য হওয়ায় তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। যেসব দলগুলোকে প্রথমে বাদ দিল ইসি- তৃণমূল ন্যাশনাল পার্টি, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ভাসানী), বাংলাদেশ ঘুষ নির্মূল পার্টি (বিজিএনপি), বাংলাদেশ সততা দল (বিএইচপি), বাংলাদেশ হিন্দুলীগ, বাংলাদেশ জনতা ফ্রন্ট, জাতীয় পরিবার কল্যাণ পার্টি (জেপিকেপি), বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি (বিআইপি), বাংলাদেশ শান্তির দল, কৃষক শ্রমিক পার্টি, জনস্বার্থে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (বিএনডিপি), বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট-বিডিএম (প্রতীক নেই) ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ভাসানী ন্যাপ (প্রতীক নেই)। এছাড়া নির্ধারিত ফরমে আবেদন না করায় সুশীল সামাজিক আন্দোলন-এসএসএ, বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টি, বাংলাদেশ তৃণমূল কংগ্রেস ও মৌলিক বাংলা নামক তিনটি দলের আবেদনে ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির স্বাক্ষর না থাকায় এবং ন্যাপ-ভাসানীর আবেদন অসম্পূর্ণ ও গঠনতন্ত্রের কপি জমা না দেয়ায় নিবন্ধন আবেদন বাতিল করা হয়েছে ।