৭ মার্চের অনুষ্ঠানে যেতে না পেরে ছাত্রীর আত্মহত্যা

মাগুরা সংবাদদাতা : ৭ মার্চের র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও অংশ নিতে না পারায় এক স্কুলছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। স্কুলের পোশাক ছেঁড়া তাই মাকে সেলাই করে দিতে বলার পরও না দেওয়ায় লুইস নামে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী অভিমানে চলেই গেল।  বুধবার সকালে মাগুরার শালিখা উপজেলার গোপালগ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে । মাগুরার শালিখা উপজেলার পোড়াগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী আছিয়া খাতুন লুইস একই উপজেলার গোপালগ্রামের দরিদ্র ভ্যানচালক হাসান আলী বিশ্বাসের মেয়ে। মা লিপি খাতুন অন্যের বাড়িতে কাজ করেন। শিশু লুইসের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।  প্রতিবেশী কেনায়েত আলী জানান, লুইস ৭ মার্চের র‌্যালি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এ সময় দেখতে পায় স্কুল পোশাকের স্কার্টটির একটি হুক ছেঁড়া। এ অবস্থায় লুইস স্কার্টের হুকটি সেলাই করে দিতে বললে রান্নার কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন বলে জানান তার মা। র্যালির সময় ঘনিয়ে আসায় এবং অনুষ্ঠানে অংশ নিতে না পারার আশঙ্কা দেখা দিলে ক্ষোভে ও কষ্টে ঘরে গিয়ে মাফলার জড়িয়ে আত্মহত্যা করে।   রান্না শেষ করে মা লিপি খাতুন ঘরে গিয়ে মেয়েকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার দিয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এলাকাবাসী তার ডাকচিৎকারে মেয়েটিকে উদ্ধারের পর মাগুরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু সেখানে পৌঁছানোর আগেই ছোট্ট শিশু লুইসের দেহে প্রাণ আর নেই।  এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কেয়া দাস, অন্যান্য শিক্ষক-সহকর্মী ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে লুইসদের বাড়িতে হাজির হন। সহপাঠিদের কান্নায় ভারি হয়ে ওঠে সেখানকার আকাশ-বাতাস।  প্রধান শিক্ষক কেয়া দাস জানান, লুইস দরিদ্র পরিবারের মেয়ে হলেও লেখাপড়ায় ছিল অত্যন্ত মনোযোগী এবং আজ তার র‌্যালি ছাড়াও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এমন দিনে তার মৃত্যুতে বিদ্যালয়ের সকলেই খুবই কষ্ট পেয়েছে।