সারাদেশে বিএনপির মানববন্ধনে নেতাকর্মীদের ঢল

স্টাফ রিপোর্টার : বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সারাদেশে এক ঘণ্টার মানববন্ধন পালন করছে বিএনপি। বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর তোপখানা রোডে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কেন্দ্রীয় ও মহানগর বিএনপির মানববন্ধন শুরু হয়। সেখানে হাজার হাজার নেতাকর্মী অবস্থান নিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছেন।  ‘হামলা করে আন্দোলন- বন্ধ করা যাবে না’, নেত্রীকে কারাগারে পাঠিয়ে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না- ইত্যাদি স্লোগানে দিচ্ছেন। নেতাকর্মীদের হাতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবি সম্বলিত ফেস্টুন দেখা যায়।  খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগানযুক্ত ব্যানারও দেখা গেছে। নেতাকর্মীর ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। তবে সেখানকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। সোমবার বেলা ১১টা দিকে মানববন্ধন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সকাল ১০টার দিকেই সেখানে নেতাকর্মী জমায়েত হতে থাকে। পরে সাড়ে ১০টার দিকে এ মানববন্ধন শুরু হয়। এতে অংশ গ্রহণ করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদীন ফারুক, আব্দুস সালাম, ফরহাদ হালীম ডোনার, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ মো. আবু জাফর, নিপুন রায় চৌধুরীসহ বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবকসহ, মহিলা দল, কৃষকদলসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মীরা। বিএনপির মানববন্ধনকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা জোরদার করেছে পুলিশ। তবে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। এদিকে রাজশাহী, চট্টগ্রাম, খুলনা ও বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় একই সময়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালনের খবর পাওয়া গেছে। এদিকে বিএনপির এ কর্মসূচি ঘিরে সকাল থেকে প্রেসক্লাব ও আশপাশের এলাকায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে পুলিশ। রয়েছেন সাদা পোশাকের গোয়েন্দা সদস্যরা। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাখা হয়েছে পুলিশের জলকামান, এপিসি ও প্রিজনভ্যান।  পুলিশের শাহবাগ এলাকার প্যাট্রল ইন্সপেক্টর আবুল বাশার বলেন, ‘আমরা জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ব্যবস্থা নেব। কেউ কোনো বিশৃঙ্খলা করতে চাইলে তা কঠোরহস্তে দমন করা হবে।’  গতকাল সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা করেন বিএনপির জেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এর আগে গত ২২ ফেব্রুয়ারি সমাবেশের কর্মসূচি পালন করতে না পেরে ২৪ ফেব্রুয়ারি কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচি ঘোষণা করে দলটি। কিন্তু পুলিশি বাধায় তাদের কর্মসূচি প- হয়ে যায়। আটক হন দলের অনেক নেতাকর্মী।   এদিকে, ১২ মার্চ আবারো ঢাকায় সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। এবার তারা সমাবেশের অনুমতির বিষয়েও আশাবাদী। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়ে খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর এটি বিএনপির পঞ্চম দফা কর্মসূচি।  গত ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদ-াদেশ এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।