দেশীয় প্রযুক্তিতেই তৈরি হবে ইলিশের নুডলস-স্যুপ

 দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি হবে ইলিশের নুডলস ও স্যুপ। মঙ্গলবার মৎস্য ভবনের সম্মেলন কক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দর হাতে ইলিশের স্যুপ ও নুডলস তৈরির প্রযুক্তি হস্তান্তর করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. নওশাদ আলম এ প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেন। উদ্ভাবিত পণ্যের গুণগত মান যাচাইয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদে নমুনা বিশ্লেষণ করে এর যথাযথ মান নিশ্চিত করা হয়েছে। নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এবং মৎস্য ও মৎস্যপণ্য বিধিমালা ১৯৯৭-সহ বিদ্যমান সংশ্লিষ্ট বিধি অনুসরণে এই পণ্যগুলো বিএসটিআই এর ছাড়পত্র নিয়ে বাজারজাত করবে। সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, ৬ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে ইলিশের মূল্য সংযোজিত পণ্য স্যুপ ও নুডলস তৈরির প্রযুক্তি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও মৎস্য অধিদফতরের মাধ্যমে ারৎমর ভরংয ধহফ ধমৎড় ঢ়ৎড়পবংং ষঃফ কে হস্তান্তর করা হয়েছে। ফলে এ প্রতিষ্ঠান ইলিশের স্যুপ ও নুডলস তৈরির বাণিজ্যিক উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের দায়িত্ব পালন করবে। ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ। আবহমানকাল থেকে এ মাছ আমাদের অর্থনীতি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, প্রাণিজ আমিষের যোগান এবং দারিদ্র্য বিমোচনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। দেশের মোট মৎস্য উৎপাদনে ইলিশের অবদান সর্বোচ্চ ১২ ভাগ। উপকূলীয় মৎস্যজীবীদের জীবিকার প্রধান উৎস ইলিশ। সংবাদ সম্মেলনে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রইছ উল আলম, অধিদফতরে মহাপরিচালক সৈয়দ আরিফ আজাদ, ইলিশের স্যুপ ও নুডলসের উদ্ভাবক ড. এ কে এম নওশাদ আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।