আশুলিয়া ভূমি অফিসে চরম অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়া ভূমি অফিসে চরম অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। অফিস বাদ দিয়ে কর্মকর্তারা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বাহিরে। অফিসিয়াল কাজ সারছেন ভাড়া করা লোক দিয়ে। ফলে অবর্ণনীয় হয়রানীর শিকার হচ্ছেন সেবা গ্রহীতারা। ফলে সেবা গ্রহীতাদের সরকারের রাজস্বের বাইরে গুণতে হচ্ছে বাড়তি পয়সা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ক্রেডিট চেকিং সায়েরাত সহকারী মাহমুদা সিদ্দিকার কক্ষে দাপ্তরিক কাজ করছেন ৩ ব্যক্তি। তাদের মধ্যে এক জনের নাম আল-আমিন এবং আরেক জনের নাম হারুন-অর-রশিদ। সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে তড়িঘড়ি করে তাদের বের করে দিয়ে কক্ষ বন্ধ করে বের হয়ে যান মাহমুদা সিদ্দিকা। এ ব্যাপারে আশুলিয়া ভূমি সহকারী সার্কেল এর কার্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, মাহমুদা সিদ্দিকা সায়েরাত সহকারী পদে থেকে নিজের দায়িত্ব পালন না করে বাড়তি সুবিধার জন্য রেকর্ড সংশোধন, ডিসিআর পর্চা সরবরাহ, নামজারী উপস্থাপনের কাজের নেতৃত্বে সেখানে কাজ করছে। আল-আমীন ডিসিআর ও পর্চা সরবরাহের কাজ করে। হারুন-অর-রশিদ রেকর্ড ও সীল মারার কাজ করে। আর কিবরিয়া অফিসের বাইরের কাজ করে বলে জানিয়েছেন হারুন-অর-রশিদ।

এ ব্যাপারে মাহমুদা সিদ্দিকার সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলে এই প্রতিনিধিকে সে জানায়, অভিযোগ সত্য নয়।

অপরদিকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাজহারুল ইসলাম মোবাইল ফোনে বলেন, এটি তার জানা নেই। অথচ পুরো অফিস জুড়েই রয়েছে সিসি ক্যামেরা। তাছাড়া আল-আমীন সেখানে কাজ করার বিষয়ে দাবি করেন বিষয়টি মাহমুদা সিদ্দিকা এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) জানেন।