শিশু জিহাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ না দেওয়ায় আদালত অবমাননার রুল

রাজধানীর শাজাহানপুরে নলকূপের পাইপে পড়ে মারা যায় শিশু জিহাদ। তাকে  উদ্ধার তৎপরতায় ছিল অবহেলা। এ কারণে তার পরিবারকে ৯০ দিনের মধ্যে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। এই নির্দেশ বাস্তবায়ন না হওয়ায় আদালত অবমাননার রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক, ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকসহ একজন পরিচালকের বিরুদ্ধে এ রুল জারি করা হয়েছে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১ মার্চ) এক আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ রুল দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মো. আব্দুল হালিম। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, আদালত শিশু জিহাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই নির্দেশনা মোতাবেক জিহাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ না দেওয়ায় গত ২২ জানুয়ারি বিবাদীদের প্রতি একটি আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু ওই নোটিশের কোনও জবাব না পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগে আবেদন করি। পরে আদালত আবেদনের শুনানি নিয়ে রুল জারি করেন।  উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর শাজাহানপুর রেল কলোনিতে একটি খোলা নলকূপের পাইপে পড়ে যায় চার বছরের শিশু জিহাদ। এরপর প্রায় ২৩ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়েও তাকে উদ্ধারে অপারগতা প্রকাশ করে ফায়ার সার্ভিস। এর কিছু পরেই কয়েকজন তরুণের তৎপরতায় তৈরি করা যন্ত্রে পাইপের নিচ থেকে তুলে আনা হয় জিহাদকে। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  ওই ঘটনায় চিলড্রেন চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মো. আব্দুল হালিম হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন।  সেই রিটের প্রাথমিক শুনানি শেষে ২০১৬ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের রায়ে শিশু জিহাদের পরিবারকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়।