মিয়ানমারের সেনাদের হুমকিতে নো ম্যানস ল্যান্ড ছাড়ছে রোহিঙ্গারা

বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সীমান্তের মধ্যবর্তী নো ম্যানস ল্যান্ডে শিবির করে থাকা রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। মিয়ানমারের সেনাদের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে তারা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে বুধবার জানিয়েছে রোহিঙ্গা নেতারা।  গত বছরের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সেনারা হত্যা-ধর্ষণ-নির্যাতন শুরু করে। সেনাদের হাত থেকে বাঁচতে এ পর্যন্ত প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। আর দুই দেশের সীমান্তের মধ্যবর্তী নো ম্যানস ল্যান্ডে অস্থায়ী তাবু করে বাস করছে প্রায় ছয় হাজার রোহিঙ্গা।  বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে নো ম্যানসল্যান্ডে থাকা অস্থায়ী তাবুগুলো থেকে মাত্র কয়েক গজ দূরে কাঁটাতারের বেড়াও অপর পাড়ে দাঁড়িয়ে মিয়ানমারের সেনারা রোহিঙ্গাদের হুমকি দিচ্ছিল। তারা ওই এলাকা ছেড়ে যাওয়ার জন্য মাইকে ক্রমাগত হুঁশিয়ারি দিচ্ছিল।  রোহিঙ্গা নেতা দিল মোহাম্মদ জানান, সেনাদের এই বার্তায় শিবিরে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।  তিনি বলেন, ‘আমরা এখন শান্তির সঙ্গে একটু ঘুমাতেও পারছি না। শিবিরের অনেক রোহিঙ্গা এখন পালিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে চাইছে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশে ১৫০টি পরিবার প্রবেশ করেছে। কারণ জোর করে তাদের রাখাইনে ফেরত পাঠানো হতে পারে বলে তারা আতংক বোধ করছিল।’  সীমান্তে থাকা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মিয়ানমারের সেনারা প্রতিদিন কমপক্ষে ১০ থেকে ১৫ বার মাইকে রোহিঙ্গাদের ওই এলাকা ছাড়ার ঘোষণা দিচ্ছে। ওই ঘোষণায় বলা হচ্ছে, যে জমিতে তারা আছে এটা তাদের নয়, এলাকা না ছাড়লে তাদেরকে বিচারের মুখোমুখি করা হবে।