বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষায় আপোষহীন প্রধান বিচারপতি

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, ‘মুষ্টিমেয় কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীর কারণে বিচার বিভাগের উজ্জ্বল ভাবমূর্তি নষ্ট হতে দিতে পারি না।’ তিনি বলেন, ‘আমি বিচার বিভাগের অভিভাবক হিসেবে এর উজ্জ্বল ভাবমূর্তি রক্ষায় সব ধরনের পদক্ষেপ নেব।’ বিচার বিভাগের উজ্জ্বল ভাবমূর্তি রক্ষায় অভিভাবক হিসেবে তিনি আপোষহীন বলেও মন্তব্য করেন। মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশে দেওয়া অভিভাষণে প্রধান বিচারপতি এ কথা বলেন। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্নীতি-অনিয়মের বিষয়ে কঠোরভাবে সর্তক করে দিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ আসলে সরাসরি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।’ বক্তব্যের শুরুতে প্রধান বিচারপতি সেকশনে দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘সঠিক সময়ে অফিসে আসতে হবে এবং যাওয়ার ক্ষেত্রেও সময়ের আগে যাওয়া যাবে না। অফিসে যথাসময়ে আসা-যাওয়ার বিষয়টি মনিটরিং করা হবে।’ মিস ফাইলিং যেন না হয় সে বিষয়ে দৃষ্টি দিতে বলেন প্রধান বিচারপতি। সেকশনে কোনো মামলা আসলে যথাসময়ে সংশ্লিষ্ট কোর্টে পাঠাতে বলেন তিনি। প্রধান বিচারপতি হাইকোর্টে থাকাকালীন নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন, ‘অনেক সময় দেখেছি কোর্টের লিস্টে আসার পরেও সেকশন থেকে ফাইল পাঠানো হয় না। আবার অনেক সময় ফাইল গায়েব হয়ে যাওয়ারও ঘটনা ঘটে। এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ প্রধান বিচারপতি বেঞ্চ অফিসারদের কজলিস্ট (কার্যতালিকা) তৈরিতে বিশেষভাবে সতর্ক করে বলেন, ‘কার্যতালিকা ক্রমানুযায়ী সঠিকভাবে করতে হবে, এদিক-সেদিক করা যাবে না। যেটা যেখানে থাকার কথা সেটা সেখানেই রাখতে হবে। এ বিষয়ে কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ আসলে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘অনেক সময় মেনশন স্লিপ দেওয়ার পর তা পাওয়া যায় না।’ এ বিষয়েও বেঞ্চ অফিসারদের সতর্ক হতে বলেন বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আদালতের যেকোনো আদেশ ফেলে রাখা যাবে না। সঙ্গে সঙ্গেই যেকোনো রায় এবং আদেশ সংশ্লিষ্ট স্থানে পাঠাতে হবে।’ প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পোশাক-পরিচ্ছদ, কথাবার্তা, চালচলন হবে মার্জিত।’ সবাইকে নিজেদের পোশাকের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলেন তিনি। এ ছাড়া স্টাফ হিসেবে নিজেদের কাজের মাধ্যমে সুপ্রিম কোর্টের মান ধরে রাখতে বলেন। বৈঠকের একাধিক সূত্র প্রধান বিচারপতির বক্তব্যের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে এটাই সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। অভিভাষণ অনুষ্ঠানে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার, অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার, ডেপুটি রেজিস্ট্রার, সহকারী রেজিস্ট্রার, বেঞ্চ অফিসার, সহকারী বেঞ্চ অফিসার ও সুপারিনটেনডেন্টরা উপস্থিত ছিলেন।