প্রতিহিংসামূলক মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে : নজরুল ইসলাম

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বর্তমান সরকার চায় খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে আবারো একতরফা ভোট করতে। আর সেজন্য রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক মামলায় তাকে সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট আয়োজিত ‘কারাবন্দি দেশনেত্রী এবং বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক মুক্ত আলোচনায় বিএনপি নেতা এসব কথা বলেন। নজরুল ইসলাম খান বলেন, কোনো পাগলেও বিশ্বাস করেন না খালেদা জিয়া তার স্বামীর নামে গঠিত ট্রাস্টের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। সরকার মনে করে দেশের মানুষ বোকা, তারা কিছুই বুঝে না। তারা যা বলবে সেটাই জনগণ বিশ্বাস করবে। কিন্তু দেশের জনগণ সময়মত তাদের জবাব দিবে সরকারের সব অন্যায়-অবিচারের।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘যারা গণতন্ত্রের শত্রু তারা খালেদা জিয়াকে শত্রু মনে করেন। কারণ তিনি দেশের হারিয়ে যাওয়া গণতন্ত্র স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লাড়াই করে ফিরিয়ে এনেছেন। আর বর্তমান একদলীয় ক্ষমতাসীন ও সাবেক স্বৈরাচারের সমন্বয়ে গঠিত সরকারে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী খালেদা জিয়া। তাই তাকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে। নজরুল ইসলাম খান বলেন, নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে। যেখানে কোনো কয়েদি থাকে না। অথচ খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসামমূলক ও অন্যায়ভাবে কারাগারে রাখা হয়েছে সাধারণ কয়েদির মতো। নজরুল ইসলাম খান আরো বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিয়ে তাকে মানসিকভাবে কষ্ট দিচ্ছে। এর মাধ্যমে তার ক্ষতি করতে পারেনি বরং তার অবস্থান ও জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দিয়েছে। তিনি এখন দেশনেত্রী থেকে দেশের মানুষের মা হয়েছেন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, বিএনপি শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করায় পুলিশ দলের নেতাকর্মীদের উপর হামলা-মামলা নির্যাতন করছে। কারণ তারা চায় আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন পরিহার করি, যাতে তারা জ্বালাও-পোড়াও করে আমাদের আরো বেশি নির্যাতন করতে পারে। আইনমন্ত্রীর সমালোচনা করে বুলু বলেন, খালেদা জিয়া আইনজীবীদের ভুলে জেলে আছেন বলে আপনি প্রমাণ করে দিলেন মামলাটি ভুয়া সাজানো। তাহলে খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করে দিন। কারণ আপনি নিজেই তো একজন আইনজ্ঞ। বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি বলেন, দেশের মানুষ আজ বিএনপির নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। তাই আমাদের কোনো কর্মসূচি পালন করতে বাধা দিচ্ছে। কারণ সরকার চিন্তা করছে বিএনপি শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করলে সরকারের পতন অনিবার্য। ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্টের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সেলিমের সভাপতিত্বে মুক্ত আলোচনায় আরো বক্তব্য দেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম, আবু নাসের মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ প্রমুখ।