খালেদা জিয়ার জেলে যাওয়া নিয়ে সরকার বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার : আইনজীবীদের ভুলের কারণে খালেদা জিয়া জেলে, এমন কথা বলে সরকার জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। তিনি আরো বলেন একথার মাধ্যমে সরকার রাজনৈতকি ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতির কক্ষে সংবাদ সম্মেলন জয়নুল আবেদীন এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকনসহ বিএনপির জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি বলেন, খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আইনের শাসনে বিশ্বাসী। তারা আদালতের ওপর কোনো প্রকার চাপ সৃষ্টি না করে আইনি লড়াই চালিয়ে যাবেন। সরকারের দেওয়া উসকানিমূলক বক্তব্যর বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানাবেন না। জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ এই মামলার নথি তলব করে হাইকোর্ট আদেশ দেওয়ার পর তা নিম্ন আদালত থেকে আসার জন্য ২৪ ঘণ্টা সময়ই যথেষ্ট ছিল। তবে আমি মনে করি, আজই মামলার নথি হাইকোর্টে আসবে। আর যদি না আসে, তাহলে আমরা মনে করব, সরকার ইচ্ছে করেই নথি পাঠাতে বিলম্ব ঘটাচ্ছে।’ ‘দুদকের এ মামলা জামিনযোগ্য। এ মামলায় নথি আসার পর যে আদেশ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে, তা যৌক্তিক বলে আমরা মনে করি না। এরপরও আমরা আইনের শাসনে বিশ্বাসী। আমরা আশা করি, আজকের মধ্যে নথি আদালতে পৌঁছাবে,’ যোগ করেন জয়নুল আবেদীন। এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয় গত ২৫ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ মামলার নথি বিচারিক আদালত থেকে হাইকোর্টে আসার পর জামিন বিষয়ে আদেশ দেবেন বলে ঘোষণা করেন। এর আগে খালেদা জিয়া আপিল করলে হাইকোর্টের এ বেঞ্চ আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে খালেদা জিয়াকে বিচারিক আদালতের করা জরিমানা স্থগিত করেন আদালত। একই সঙ্গে ওই দিন থেকে ১৫ দিনের মধ্যে মামলার নথি হাইকোর্টে পাঠাতে বিচারিক আদালতকে নির্দেশ দেন।