বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আলাল আটক

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে নয়াপল্টন এলাকা থেকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। আটকের ঠিক আগ মুহূর্তে আলাল নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। তাকে আটকে ঠিক আগ মুহূর্তে সাবেক এমপি রাশেদা বেগম হিরাকেও আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

শনিবার বেলা সাড়ে বারোটার দিকে মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে আটক করা হয়। এর আগে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে শনিবার কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচির আগে ঢাকায় বিএনপি’র কার্যালয়ে সামনে জড়ো হওয়া নেতা-কর্মীদের লাঠিপেটা করে সরিয়ে দিয়েছে পুলিশ, আটক করেছে প্রায় ৪২ জনকে। রাজধানীতে সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে শনিবার ‘কালো পতাকা প্রদর্শন’ কর্মসূচি দিয়েছিল বিএনপি। সকাল ১১টায় নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এই কর্মসূচিতে অংশ নিতে বিএনপি নেতা-কর্মীরা সেখানে জড়ো হয়েছিল। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, মওদুদ আহমদ, ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আবদুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, সাবেক সংসদ সদস্য নীলোফার চৌধুরী মনি ছিলেন সেখানে।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কয়েকশ কর্মীরা কার্যালয়ের সামনে সড়কে কালো পতাকা নিয়ে বসে পড়েন। খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে স্লোগান শুরু করেন তারা। এর আগে থেকেই বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দুই পাশে বিপুল পুলিশসহ সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সদস্যরা অবস্থান নিয়ে ছিল জলকামানের গাড়ি ও সাজোঁয়া যান নিয়ে। বিএনপিকর্মীরা সড়কে অবস্থান নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে লাঠিপেটা শুরু করে পুলিশ, জলকামান থেকে রঙিন পানিও ছুড়তে থাকে। লাঠিপেটায় ফজলুল হক মিলন ও মনি আহত হয়েছেন। তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ৪২ জনকে আটক করে পুলিশের ভ্যানে তুলতেও দেখা যায়। রঙিন পানিতে আক্রান্ত বিএনপি মহাসচিবসহ অন্য নেতারা দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান নিয়ে আছেন। ভেতর থেকে স্লোগান দিচ্ছেন কর্মীরা। কার্যালয়ের বাইরে যে প্যান্ডেল করা হয়েছিল, তা পুলিশ ভেঙে দিয়েছে। কালো পতাকাগুলো ছড়িয়ে পড়ে আছে সড়কের বিভিন্ন স্থানে। আশপাশের গলিতে আশ্রয় নেওয়া বিএনপি কর্মীদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে কারাগারে থাকা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপি গত ২২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা নয়া পল্টনে জনসভার অনুমতি চেয়েছিল। কিন্তু পুলিশ অনুমতি দেয়নি। এর আগে ২২ ফেব্রুয়ারি সমাবেশের অনুমতি না পাওয়ায় গতকাল বুধবার বিকালে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী ঘোষণা দিয়েছিলেন, বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে ২২ ফেব্রুয়ারি সমাবেশের অনুমতি না দেয়ার প্রতিবাদে ২৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানীতে কালো পতাকা মিছিল করবে বিএনপি। তবে ঘোষণার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তা ‘কালো পতাকা প্রদর্শন’ এর ঘোষণা দিয়েছে দলটি। এব্যাপারে সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাড.রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘আমরা মনে করি কালো পতাকা মিছিলের চেয়ে কালো পতাকা প্রদর্শনের ব্যাপকতা বেশি। এতে সাধারণ মানুষ যে কোনও জায়গায় এটি প্রদর্শন করতে পারবে। এছাড়া মহান শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শুক্রবার রাজধানীর রমনাস্থ ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়নে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।’অনেকটা নমনীয় কর্মসূচি কেন, এমন প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, আমরা মনে করি এর ব্যাপকতা বেশি। এই কর্মসূচিতে দলের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ ও গণতন্ত্রকামী সংগঠনগুলোও অংশ নিতে পারবে।