সিংগাইরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ইটভাটা মালিক নিহত, আহত-১১

মাসুম বাদশাহ, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) থেকে : সিংগাইর উপজেলার চান্দহর ইউনিয়নের সোনাটেংরা-বাঘুলি গ্রামে শুক্রবার সকালে দু’পক্ষের সংঘর্ষে এসএমবি ইটভাটার মালিক হাসেম মোল্লা (৪৮) নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন উভয় পক্ষের ১১ জন। পুলিশ হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে ২ স্কুল ছাত্রকে আটক করেছেন।  প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ১০ টার দিকে ওই এলাকার এসএমবি ইটভাটার রাস্তা ব্যবহারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আনোয়ার সিকদার গ্রুপ ও ভাটা মালিক হাসেম মোল্লা গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত হয়ে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। আনোয়ার সিকদার গ্রুপের হামলায় হাসেম মোল্লা নিহত হন। এ সময় উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হন। আহতরা হচ্ছেন- হাসেম মোল্লা গ্রুপের শুকুর মোল্লা (৫০), আজাহার মোল্লা (৩৮), বাছের মোল্লা (৩০), ফয়সাল (৩২), মেহেদি হাসান (২৬) ও সাজ্জাদ (২৭)। অপর দিকে আনোয়ার গ্রুপের আহতরা হচ্ছেন- আনোয়ার সিকদার (৪০), জহিরুল সিকদার (৪২), শফিকুল সিকদার (৩৫), কহিনুর সিকদার (৩৫) ও মমিন সিকদার (৩২)। আহতদের মধ্যে আজাহার মোল্লা, আনোয়ার সিকদার ও জহিরুল সিকদারের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে বলে পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে।

এ ঘটনায় পুলিশ জড়িত সন্দেহে দশম শ্রেণীর দু’ছাত্র- মুরাদ ও রোহানকে আটক করেছেন। আটককৃত দু’জনই আনোয়ার সিকদার পরিবারের সদস্য। নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। পরিবারে চলছে শোকের মাতম। এ ব্যাপারে সিংগাইর শান্তিপুর-বাঘুলি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনর্চাজ পুলিশ পরিদর্শক মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য দু’জনকে আটক করা হয়েছে। এজাহার অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।