নেতৃত্বের অভাবকেই দায়ী করলেন পাপন

: নিজেদের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিনটি সিরিজেই হেরেছে বাংলাদেশ। যে ওয়ানডেতে ঘরের মাঠে গত তিন বছর দাপটের সঙ্গে বাঘা বাঘা প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জিতেছেন, সেই ওয়ানডেতেও শিরোপা হাতছাড়া। হঠাৎ এমন কি হলো যে নিজেদের মাটিতে এমন নাস্তানুবুদ হতে হলো টাইগারদের। এ নিয়ে নানা জনের নানা মতবাদ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন অবশ্য মনে করেন, সঠিক নেতৃত্বের অভাবেই এমনভাবে হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। সঠিক পরিকল্পনা করার ক্ষমতা এবং মানসিকভাবেও পিছিয়ে ছিল মনে করেন বোর্ড সভাপতি। শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রায় পুরোটা সময় জুড়েই দেশের বাইরে ছিলেন পাপন। ফিরেছেন গত রবিবার সন্ধ্যায়। ফিরেই গত দুই দিন কোচিং স্টাফ, নির্বাচক ও খেলোয়াড়দের সঙ্গে দফায় দফায় করেন আলোচনা। মঙ্গলবার এমন একটি আলোচনা সভা শেষ করে পাপন জানালেন, একটা দলের সঙ্গে খেলতে হলে কৌশল থাকে। ওই কৌশল অনুযায়ী খেলতে হবে। কি ধরনের পিচে খেলবেন, কি ধরনের দল খেলাবেন। ওখানেই যদি আপনি নিশ্চিত না হন। এটা যদি না থাকে। একেকজনের মতামত শোনেন। ওই লিডারশিপ যদি না থাকে। তাহলে তো সমস্যা। গত অক্টোবরে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব ছাড়েন হাথুরুসিংহে। তার অধীনে শেষ সাড়ে তিন বছরে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী ধারাবাহিক ক্রিকেটই খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু চলতি সিরিজে আগের সেই পরিকল্পনা চোখে পরেনি পাপনের, একটা পরিকল্পনা গত চার বছরে দেখে এসেছি। এটা ওদের থেকে পাইনি। তবে বেসিক্যালি সমস্যাটা যেটা হয়েছে আগে যেটা হয়েছে পরিকল্পনা, স্ট্র্যাটেজি এবং মানসিক যে শক্তি ছিল…আমরা জিততে পারি কিংবা জিতব… টিমওয়ার্ক এগুলোর মধ্যে যথেস্ট ঘাটতি ছিল। এটা আমার ধারণা। আমি খেলা দেখে এটা বুঝেছি। আমাদের ভালোমানের একজন কোচ খুব তাড়াতাড়ি দরকার। তবে ব্যক্তিগত কাউকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাননি পাপন। দলের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই বুঝতে পেরেছেন একজন প্রধান কোচ ছাড়া দলকে গোছানো অসম্ভব। তাই খুব শিগগিরই নতুন কোচ নিয়োগ দেয়া হবে বলেই আশ্বাস দেন তিনি, আমি কাউকে ছোট করার জন্য বলছি না। আমি এটা পরিস্কার করেই বলতে চাই। তবে একটা জিনিস নিশ্চিত এরকম আরও আছে। যিনি কিনা এই দলটাকে গুছিয়ে আগের মত আবার ভাল অবস্থায় নিয়ে আসবে। এছাড়াও দলের অস্থির অবস্থা, দল নিয়ে অতিরিক্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়টি চোখে পড়েছে পাপনের। দলের সেরা দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের ইনজুরিও এর পেছনে দায়ী বলে মনে করেন তিনি। তারপরও সঠিক নেতৃত্বের অভাবের কথাই ঘুরে ফিরে আসে বারবার।