সিংগাইরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে দেশে ফিরে প্রাণ গেল সৌদি আরব প্রবাসির!

86

সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি ঃ মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার সায়েস্তা ইউনিয়নের কানাই নগর গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিপক্ষের হামলায় শুক্রবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে প্রাণ হারালেন এক প্রবাসী।

নিহত নাগর আলী ওই গ্রামের শেখ কালু মিয়ার পুত্র। সে দীর্ঘদিন যাবত সৌদি-আরবে কর্মরত ছিলেন। ছুটিতে দেশে এসে সে প্রতিপক্ষের আঘাতে প্রাণ দিলেন। আগামী ৫ জানুয়ারি তার কর্মস্থলে যাওয়ার কথা ছিলো। আহত ৩ জনের মধ্যে সাগর আলী আশংকাজনক অবস্থায় সাভারস্থ এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

সরেজমিনে নিহত’র পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ৩ শতাংশ জমি নিয়ে নাগর আলী গংদের সাথে প্রতিবেশি মোহাম্মদ আলী গংদের বিরোধ চলে আসছিল।

গত ২২ ডিসেম্বর বৃহঃপতিবার ওই জমিতে খড়ের পালা দেয় নিহত’র ভাই বাবর আলী। ওই পালা সরানোকে কেন্দ্র করে পরদিন শুক্রবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল ৮ টার দিকে প্রতিপক্ষ মৃত দুখাই পালের পুত্র মোহাম্মদ আলী (৬০), আত্রব আলী (৫৬), লুৎফর (৫০), মোহাম্মদ আলীর পুত্র মকবুল (৩২), কালাম (২৬), ভাগিনা মিলন (২৬), লুৎফরের পুত্র আশরাফুলসহ (২০) অজ্ঞাত আরো ৭/৮জন বাঁশের লাঠি, লোহার রড দিয়ে নাগর আলী, সাগর আলী, বাবর আলী ও সাগরের স্ত্রী নাসিমার (২৮) উপর হামলা চালায়। তাদের উপযুর্পরী মারপিটে নাগর আলী ও সাগর আলীর মাথা ফেটে গেলে তৎক্ষণাৎ  মাটিতে লুটে পড়ে। এসময় বাবর আলী ও সাগরের স্ত্রী নাসিমা বেগমও  রক্তাক্ত জখম হয়। এলাকাবাসি আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। নাগর আলী ও সাগর আলীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। পরিবারের লোকজন ওই দু’জনকে সাভারস্থ এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

বৃহঃপতিবার (২৯ ডিসেম্বর) নাগর আলীর অবস্থা আরো খারাপ হলে তাকে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে তার মৃত্যু হয়। মুমুর্ষ সাগর আলী হাসপাতালের আইসিইউতে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।

এদিকে সাগরের স্ত্রী নাসিমা ও বাবর আলী চিকিৎসা শেষে কিছুটা সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেন। এ ঘটনায় নিহতের ভাই বাবর আলী বাদী হয়ে  সিংগাইর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে সিংগাইর থানার ওসি (তদন্ত) সুমন কুমার আদিত্য বলেন, অভিযোগ পেয়ে আজ সকালে মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী নাসিমাকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতের লাশ এলাকায় এসে পৌঁছেনি।