সরকারের সঙ্গে প্রকাশকদের প্রতারণা : বৃত্তির নিশ্চয়তা দিয়ে নোট-গাইড বাজারে

39

প্রতিশ্রুতি ভুলে পাল্টি খেয়ে মুফতে মুনাফা লুটতে মাঠে নেমেছেন এক শ্রেণির প্রকাশক। কাগজ সংকটের কারণে এ বছর পাঠ্যবই ছাপা শেষ হওয়ার আগে অন্যান্য বই ছাপাবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা। কিন্তু প্রায় ১২ বছর পর পঞ্চম শ্রেণির বৃত্তি পরীক্ষার ঘোষণা হতে না হতেই ভোল পাল্টেছেন মুনাফালোভীরা।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় পরীক্ষাকে সামনে রেখে তারা নিষিদ্ধ নোট আর গাইড বইয়ে বাজার ভরিয়ে ফেলেছেন। এসব বইয়ের মোড়কে লিখে ‘বৃত্তি পাওয়ার নিশ্চিয়তা’ও দেয়া হচ্ছে। এমনকি তাদের প্রতিনিধিরা স্কুলে স্কুলে গিয়ে শিক্ষকদের নানা সুবিধা পাইয়ে দিয়ে নিজেদের নোট ও গাইড বই এর পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় পঞ্চম শ্রেণির বৃত্তি পরীক্ষা আয়োজনের ঘোষণা দেয়ার আগেই শিক্ষা প্রশাসনে নিজেদের নিয়োজিত সোর্সের মাধ্যমে মুনাফালোভী প্রকাশকরা বিষয়টি জানতে পারেন। সেভাবে প্রস্তুতি নিয়ে রাখেন। তাই ঘোষণা হওয়ার মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যেই তারা নিষিদ্ধ নোট ও গাইড বই বাজারে ছড়িয়ে দেন।

প্রকাশকদের এই ‘নিষিদ্ধ বাণিজ্যে’ তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের’ (এনসিটিবি) কর্মকর্তারা। তাদের দাবি, কাগজ সংকটে এবার পাঠ্যপুস্তক ছাপায় কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। এই সুযোগে এক শ্রেণির প্রকাশক বাণিজ্য করতে চাচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারাও বলছেন, ‘বৃত্তির নিশ্চয়তা’ কেউ দিতে পারবে না। এই ‘নিশ্চয়তা’ স্পষ্টতই প্রতারণা।

ছাপাখানা মালিক ও এনসিটিবি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০২৩ শিক্ষাবর্ষের জন্য এবার সরকার প্রায় ৩৫ কোটি পাঠ্যবই ছাপছে। এসব বই ছাপতে প্রায় এক লাখ মেট্রিক টন কাগজ প্রয়োজন। কিন্তু দেশে ডলার সংকট, বিশ্বব্যাপী মূল্যস্ফীতি, গ্যাস সংকট এবং নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের অভাবে উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় এমনিতেই দেশে কাগজের সংকট প্রকট। এ পরিস্থিতিতে নভেম্বর ও ডিসেম্বরে সহায়ক বইয়ের নামে বিক্রি হওয়া ‘নিষিদ্ধ নোট-গাইড’ বইয়ের মুদ্রণ ও বাজারজাতকরণ বন্ধ রাখতে সরকারের পক্ষ থেকে পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির কাছে অনুরোধ করা হয়েছিল। একই সঙ্গে খোলাবাজারে এ ধরনের নিষিদ্ধ বইয়ের বিক্রি ঠেকাতে জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারদের চিঠি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু প্রশাসনের কোনো ধরনে প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপই কাজে আসেনি।